মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

একসাথে ৪ নবজাতকের জন্ম দিলেন মা

রাজশাহীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে একসাথে চারজন নবজাতকের জন্ম দিয়েছেন এক মা। জন্মের পর সুস্থ আছে মা’সহ চারটি শিশু। তবে মাত্র সাত মাস বয়সে পৃথিবীর আলো দেখেছে ওই ৪ শিশু। এ কারণেই তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

সদ্য জন্ম নেয়া চার মেয়ে শিশুকে দেখাশোনা করছেন চিকিৎসকরা। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে  ফুটফুটে সেই ৪ শিশুদের দেখতে ভীড় করছেন অন্য ওয়াডের রোগীর স্বজনেরা।

জানা যায়, রাজশাহীর ধরমপুর পূর্বপাড়া বাসিন্দা পলাশ আলী ও সোনিয়া খাতুন দম্পতির বিয়ের ছয় বছর পর একসঙ্গে চারজন মেয়ে সন্তানের জন্ম হয়। দরিদ্র পিতা পেশায় একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী। তাই এই সন্তানদের ভরণপোষণের বিষয়টি নিয়ে কপালে চিন্তার ভাজ পড়েছে। এজন্য পরিবাটি সমাজের বিত্তবানদের কাছ থেকে সহযোগিতা কামনা করেছেন।

নিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ওসীফ ইকবাল। তিনি জানান, ৪টি বাচ্চা অনেক আগে জন্ম নেয়ায় এখন পর্যন্ত শঙ্কামুক্ত নয়।

এর আগে, গত শুক্রবার (১৪ জুন) সন্ধ্যায় পেটে ব্যথা নিয়ে প্রথমে রাজশাহীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে সোনিয়া খাতুনের পরিবার। অবস্থা সংকটাপন্ন হলে সেই সময়  সিজারিয়ান করে চিকিৎসকরা। এখন মা সোনিয়াসহ ৪ বাচ্চা রামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

 

কালের চিঠি /

Tag :
Popular Post

বেরোবিতে কোঠা ইস্যুতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা

একসাথে ৪ নবজাতকের জন্ম দিলেন মা

Update Time : ০৩:৪৯:২৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪

রাজশাহীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে একসাথে চারজন নবজাতকের জন্ম দিয়েছেন এক মা। জন্মের পর সুস্থ আছে মা’সহ চারটি শিশু। তবে মাত্র সাত মাস বয়সে পৃথিবীর আলো দেখেছে ওই ৪ শিশু। এ কারণেই তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

সদ্য জন্ম নেয়া চার মেয়ে শিশুকে দেখাশোনা করছেন চিকিৎসকরা। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে  ফুটফুটে সেই ৪ শিশুদের দেখতে ভীড় করছেন অন্য ওয়াডের রোগীর স্বজনেরা।

জানা যায়, রাজশাহীর ধরমপুর পূর্বপাড়া বাসিন্দা পলাশ আলী ও সোনিয়া খাতুন দম্পতির বিয়ের ছয় বছর পর একসঙ্গে চারজন মেয়ে সন্তানের জন্ম হয়। দরিদ্র পিতা পেশায় একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী। তাই এই সন্তানদের ভরণপোষণের বিষয়টি নিয়ে কপালে চিন্তার ভাজ পড়েছে। এজন্য পরিবাটি সমাজের বিত্তবানদের কাছ থেকে সহযোগিতা কামনা করেছেন।

নিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ওসীফ ইকবাল। তিনি জানান, ৪টি বাচ্চা অনেক আগে জন্ম নেয়ায় এখন পর্যন্ত শঙ্কামুক্ত নয়।

এর আগে, গত শুক্রবার (১৪ জুন) সন্ধ্যায় পেটে ব্যথা নিয়ে প্রথমে রাজশাহীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে সোনিয়া খাতুনের পরিবার। অবস্থা সংকটাপন্ন হলে সেই সময়  সিজারিয়ান করে চিকিৎসকরা। এখন মা সোনিয়াসহ ৪ বাচ্চা রামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

 

কালের চিঠি /