মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাকিবকে টুপি খোলা সালাম: মাশরাফী

চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইটের দৌড়ে টিকে থাকতে হলে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচটি জিততেই হতো বাংলাদেশকে। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ব্যাট হাতে জ্বলে উঠেন সাকিব আল হাসান। ‘সুপার’ সাকিবে নেদারল্যান্ডসের বিরুদ্ধে জিতে সুপার এইটের পথে বেশ ভালোভাবেই এগিয়ে গেল টাইগাররা।

বল হাতে উইকেটশূন্য থাকলেও সাকিবের হাতেই ওঠলো ম্যাচসেরার পুরষ্কার। কারণ ব্যাট হাতেই যে তিনি বড় অবদান রেখেছেন দলের জয়ে। ৪৬ বলে খেলা সাকিবের অনবদ্য ৬৪’তে বাংলাদেশ পেয়ে যায় ১৫৯ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ। এরপর বোলারদের দাপুটে পারফরম্যান্সে বাংলাদেশের নিশ্চিত হয় ২৫ রানের জয়।

৩ ম্যাচে ২ জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দুই নম্বর অবস্থান আরও শক্ত করল বাংলাদেশ। বিশ্ব মঞ্চে এমন দারুণ জয়ে উচ্ছ্বসিত জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা।

বাংলাদেশের এমন জয়ের পর নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সাকিবকে নিয়ে মাশরাফী লিখেছেন, বাংলাদেশের ক্যাপ্টেন হয়ে সেন্ট ভিন সেন্টের এই মাঠে প্রথম টেস্ট ম্যাচ খেলেছিলাম। প্রথম ইনিংসে সম্ভবত ৩৮ বা ৪০ রান করেছিলাম। প্রথম ইনিংসে ৬ ওভার বল করে ইনজুরিতে পড়ি এবং পরে আর বল করা হয়নি। যদিও টেস্ট ম্যাচ আমরা জিতি এবং রিয়াদ সেকেন্ড ইনংসে ৬ উইকেট পায়। এটাই আমার শেষ টেস্ট ম্যাচ ছিল এবং আমি এরপর অপারেশন করে আবার প্রায় আট মাস পর দলে ফিরি।

মাশরাফী আরও যোগ করেন, সেটা ছিলো ২০০৮ সাল,এবং সেই ম্যাচে সাকিব পরে ক্যাপ্টেন হিসাবে দলের দায়িত্ব নেয়। আজ সাকিব আবার পুরো দলের দায়িত্ব নিয়ে দারুণ একটা ইনিংস খেলেছে, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল শেষ ওভার পর্যন্ত ব্যাটিং করেছে। যার কারণে একটা বড় রান করা সম্ভব হয়েছে, সেই সাথে রিয়াদ এবং জাকেরের কথা বলতেই হবে। তারা দু’জনও সিচুয়েশন অনুযায়ী যা দরকার ছিল সেটাই করেছে।

তিনি লেখেন, বোলিংয়ে পুরো দল হিসাবে আবার ও দারুণ পারফরমেন্স। দিন দিন রিশাদ স্বস্তির জায়গা হয়ে উঠছে, মোস্তাফিজ, তানিজিম সাকিব অসাধারণ। তাসকিনের কথা আসলেই আলাদা করে বলা উচিত, বিগত দুই বছরে এই ফরম্যাটে বুমরাহ’র পর সম্ভবত সে বিশ্বের সেরাদের কাতারে।

সব শেষে মাশরাফী বলেন, এই বিশ্বকাপ সত্যিই আমাদের জন্য বিশাল সুযোগ। এতো স্লো উইকেটে খেলা যেটা আমরা সবসময় আশা করি। সেরা আটে স্বাগতম। এবার শুরু হবে আমাদের আসল বিশ্বকাপ। এই উইকেটে কেউ সেরা দল নয়, আমরা বিশ্বাস রাখতে পারলে দারুণ কিছু করা সম্ভব। সাকিব কে টুপি খোলা সালাম, সেই সাথে পুরো দলকে অভিনন্দন। বিগ বিগ রিলিফ।

নেদারল্যান্ডস ম্যাচে সাকিব-তামিমের জুটিতে শক্ত ভিত গড়ে বাংলাদেশ। কিন্তু নিয়মিত বিরতিতে উইকেট শিকার করে টাইগারদের ম্যাচে এগিয়ে থাকতে দেননি ডাচ বোলাররা। মাঝে এসে সাকিবকে দারুণভাবে সঙ্গ দিয়ে যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। শেষদিকে জাকের আলি খেলেছেন ক্যামিও ইনিংস।

 

কালের চিঠি / আলিফ

Tag :
Popular Post

বেরোবিতে কোঠা ইস্যুতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা

সাকিবকে টুপি খোলা সালাম: মাশরাফী

Update Time : ০৪:০১:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪

চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইটের দৌড়ে টিকে থাকতে হলে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচটি জিততেই হতো বাংলাদেশকে। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ব্যাট হাতে জ্বলে উঠেন সাকিব আল হাসান। ‘সুপার’ সাকিবে নেদারল্যান্ডসের বিরুদ্ধে জিতে সুপার এইটের পথে বেশ ভালোভাবেই এগিয়ে গেল টাইগাররা।

বল হাতে উইকেটশূন্য থাকলেও সাকিবের হাতেই ওঠলো ম্যাচসেরার পুরষ্কার। কারণ ব্যাট হাতেই যে তিনি বড় অবদান রেখেছেন দলের জয়ে। ৪৬ বলে খেলা সাকিবের অনবদ্য ৬৪’তে বাংলাদেশ পেয়ে যায় ১৫৯ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ। এরপর বোলারদের দাপুটে পারফরম্যান্সে বাংলাদেশের নিশ্চিত হয় ২৫ রানের জয়।

৩ ম্যাচে ২ জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দুই নম্বর অবস্থান আরও শক্ত করল বাংলাদেশ। বিশ্ব মঞ্চে এমন দারুণ জয়ে উচ্ছ্বসিত জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা।

বাংলাদেশের এমন জয়ের পর নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সাকিবকে নিয়ে মাশরাফী লিখেছেন, বাংলাদেশের ক্যাপ্টেন হয়ে সেন্ট ভিন সেন্টের এই মাঠে প্রথম টেস্ট ম্যাচ খেলেছিলাম। প্রথম ইনিংসে সম্ভবত ৩৮ বা ৪০ রান করেছিলাম। প্রথম ইনিংসে ৬ ওভার বল করে ইনজুরিতে পড়ি এবং পরে আর বল করা হয়নি। যদিও টেস্ট ম্যাচ আমরা জিতি এবং রিয়াদ সেকেন্ড ইনংসে ৬ উইকেট পায়। এটাই আমার শেষ টেস্ট ম্যাচ ছিল এবং আমি এরপর অপারেশন করে আবার প্রায় আট মাস পর দলে ফিরি।

মাশরাফী আরও যোগ করেন, সেটা ছিলো ২০০৮ সাল,এবং সেই ম্যাচে সাকিব পরে ক্যাপ্টেন হিসাবে দলের দায়িত্ব নেয়। আজ সাকিব আবার পুরো দলের দায়িত্ব নিয়ে দারুণ একটা ইনিংস খেলেছে, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল শেষ ওভার পর্যন্ত ব্যাটিং করেছে। যার কারণে একটা বড় রান করা সম্ভব হয়েছে, সেই সাথে রিয়াদ এবং জাকেরের কথা বলতেই হবে। তারা দু’জনও সিচুয়েশন অনুযায়ী যা দরকার ছিল সেটাই করেছে।

তিনি লেখেন, বোলিংয়ে পুরো দল হিসাবে আবার ও দারুণ পারফরমেন্স। দিন দিন রিশাদ স্বস্তির জায়গা হয়ে উঠছে, মোস্তাফিজ, তানিজিম সাকিব অসাধারণ। তাসকিনের কথা আসলেই আলাদা করে বলা উচিত, বিগত দুই বছরে এই ফরম্যাটে বুমরাহ’র পর সম্ভবত সে বিশ্বের সেরাদের কাতারে।

সব শেষে মাশরাফী বলেন, এই বিশ্বকাপ সত্যিই আমাদের জন্য বিশাল সুযোগ। এতো স্লো উইকেটে খেলা যেটা আমরা সবসময় আশা করি। সেরা আটে স্বাগতম। এবার শুরু হবে আমাদের আসল বিশ্বকাপ। এই উইকেটে কেউ সেরা দল নয়, আমরা বিশ্বাস রাখতে পারলে দারুণ কিছু করা সম্ভব। সাকিব কে টুপি খোলা সালাম, সেই সাথে পুরো দলকে অভিনন্দন। বিগ বিগ রিলিফ।

নেদারল্যান্ডস ম্যাচে সাকিব-তামিমের জুটিতে শক্ত ভিত গড়ে বাংলাদেশ। কিন্তু নিয়মিত বিরতিতে উইকেট শিকার করে টাইগারদের ম্যাচে এগিয়ে থাকতে দেননি ডাচ বোলাররা। মাঝে এসে সাকিবকে দারুণভাবে সঙ্গ দিয়ে যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। শেষদিকে জাকের আলি খেলেছেন ক্যামিও ইনিংস।

 

কালের চিঠি / আলিফ