মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সুপার এইটে খেলবে বাংলাদেশ!

দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইটে নেই বাংলাদেশ। মাঝে অনেকগুলো বছর বাছাইপর্ব শেষে সুপার টেনের মূল পর্বে জায়গা করে নিলেও স্মৃতিগুলো খুব একটা সুখকর ছিল না। এক হিসেবে কখনো গ্রুপপর্বই পার করা হয়নি টাইগাররা। সেদিক থেকে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সুপার এইট অনেকটাই নিশ্চিত করে ফেলেছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরুর সুবাদে সুবিধাজনক অবস্থায় ছিল বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারাতে পারলে সহজ হতো সমীকরণ। জয়ের সুবাতাস পেয়েও ৪ রানের হারে যাত্রাটা কিছুটা কঠিন হয় টাইগারদের। নিজেদের সবশেষ ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে সুপার এইটের আশা জিইয়ে রেখেছে বাংলাদেশ। সেজন্য শেষ ম্যাচে আরেকটি জয়ের অপেক্ষায় টাইগাররা।

গ্রুপ-ডিতে ৩ ম্যাচে ৩ জয় নিয়ে সবার প্রথমে সুপার এইট নিশ্চিত করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ৬ পয়েন্ট পাওয়া প্রোটিয়াদের নেট রান রেট প্লাস০.০৬৩। ৩ ম্যাচে দুই জয় ও এক পরাজয় নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে বাংলাদেশ নেট রান রেট প্লাস ০.৪৭৮,পয়েন্ট ৪। ৩য় স্থানে থাকা ডাচদের ৩ ম্যাচে ১টি মাত্র জয় রান রেট মাইনাস ০.৪০৮ পয়েন্ট ২।

যেহেতু শ্রীলঙ্কার এই পয়েন্ট অর্জন করা আর কোনোভাবেই সম্ভব না, তাই গ্রুপ পর্ব থেকেই বাদ পড়লো লঙ্কানরা। শেষ ম্যাচে টাইগাররা নেপালের বিপক্ষে জয় পেলেই হবে। বাড়তি কোনো হিসেব নিকেশের প্রয়োজন হবে না।

তবে বাংলাদেশ নেপালের কাছে হেরে গেলে সেইসঙ্গে শ্রীলঙ্কা এবং নেদারল্যান্ডস ম্যাচে ডাচরা জিতে গেলে নেদারল্যান্ডস ও বাংলাদেশের পয়েন্ট হবে ৪। এমন অবস্থায় নেট রানরেটের ভিত্তিতে নির্ধারিত হবে সুপার এইটের সমীকরণ।

১৭ বছরের অপেক্ষা শেষের মিশনে নামছে বাংলাদেশ। শেষ ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে জয় দিয়ে কোন প্রকার জটিল সমীকরণ ছাড়াই সুপার এইটে যেতে চাইবে শান্ত বাহিনী।

কালের চিঠি / আলিফ

Tag :
Popular Post

বেরোবিতে কোঠা ইস্যুতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সুপার এইটে খেলবে বাংলাদেশ!

Update Time : ০৪:০৩:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪

দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইটে নেই বাংলাদেশ। মাঝে অনেকগুলো বছর বাছাইপর্ব শেষে সুপার টেনের মূল পর্বে জায়গা করে নিলেও স্মৃতিগুলো খুব একটা সুখকর ছিল না। এক হিসেবে কখনো গ্রুপপর্বই পার করা হয়নি টাইগাররা। সেদিক থেকে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সুপার এইট অনেকটাই নিশ্চিত করে ফেলেছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরুর সুবাদে সুবিধাজনক অবস্থায় ছিল বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারাতে পারলে সহজ হতো সমীকরণ। জয়ের সুবাতাস পেয়েও ৪ রানের হারে যাত্রাটা কিছুটা কঠিন হয় টাইগারদের। নিজেদের সবশেষ ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে সুপার এইটের আশা জিইয়ে রেখেছে বাংলাদেশ। সেজন্য শেষ ম্যাচে আরেকটি জয়ের অপেক্ষায় টাইগাররা।

গ্রুপ-ডিতে ৩ ম্যাচে ৩ জয় নিয়ে সবার প্রথমে সুপার এইট নিশ্চিত করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ৬ পয়েন্ট পাওয়া প্রোটিয়াদের নেট রান রেট প্লাস০.০৬৩। ৩ ম্যাচে দুই জয় ও এক পরাজয় নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে বাংলাদেশ নেট রান রেট প্লাস ০.৪৭৮,পয়েন্ট ৪। ৩য় স্থানে থাকা ডাচদের ৩ ম্যাচে ১টি মাত্র জয় রান রেট মাইনাস ০.৪০৮ পয়েন্ট ২।

যেহেতু শ্রীলঙ্কার এই পয়েন্ট অর্জন করা আর কোনোভাবেই সম্ভব না, তাই গ্রুপ পর্ব থেকেই বাদ পড়লো লঙ্কানরা। শেষ ম্যাচে টাইগাররা নেপালের বিপক্ষে জয় পেলেই হবে। বাড়তি কোনো হিসেব নিকেশের প্রয়োজন হবে না।

তবে বাংলাদেশ নেপালের কাছে হেরে গেলে সেইসঙ্গে শ্রীলঙ্কা এবং নেদারল্যান্ডস ম্যাচে ডাচরা জিতে গেলে নেদারল্যান্ডস ও বাংলাদেশের পয়েন্ট হবে ৪। এমন অবস্থায় নেট রানরেটের ভিত্তিতে নির্ধারিত হবে সুপার এইটের সমীকরণ।

১৭ বছরের অপেক্ষা শেষের মিশনে নামছে বাংলাদেশ। শেষ ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে জয় দিয়ে কোন প্রকার জটিল সমীকরণ ছাড়াই সুপার এইটে যেতে চাইবে শান্ত বাহিনী।

কালের চিঠি / আলিফ