শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অবন্তিকার আত্মহত্যা: জামিনে মুক্ত অভিযুক্ত দ্বীন ইসলাম

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাইরুজ সাদাফ অবন্তিকাকে আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলায় অভিযুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। আজ বুধবার (৮ মে) হাইকোর্ট থেকে এ মামলায় জামিন পান তিনি।

পরে বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার আব্দুল্লাহ আল মামুন।

গত ১৫ মার্চ রাতে ফেসবুক স্ট্যাটাসে সহকারী প্রক্টর ও সহপাঠীকে দায়ী করে আত্মহত্যা করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী অবন্তিকা। সেদিন মধ্যরাত থেকেই উত্তাল হয়ে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। ক্ষোভে ফেটে পড়েন সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের দ্রুত বিচারের দাবিতে রাতভর ক্যাম্পাসে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন তারা।

ওই রাতেই সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলামকে অব্যাহতি ও সহপাঠী আম্মান সিদ্দিকীকে সাময়িক বহিষ্কারের কথা জানায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

পরদিন ১৬ মার্চ অবন্তিকার মা তাহমিনা বেগম কুমিল্লার কোতোয়ালি মডেল থানায় সহপাঠী রায়হান সিদ্দিক ওরফে আম্মান ও সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলামকে আসামি করে আত্মহত্যার প্ররোচনার দায়ে মামলা করেন। এদিন সন্ধ্যায় ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশের লালবাগ বিভাগ তাদের গ্রেফতার করে।

এরপর তাদের আদালতে তোলা হলে আম্মান সিদ্দিকীর দুইদিন এবং দ্বীন ইসলামের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। রিমান্ড শেষে তাদের জামিন চাওয়া হলে আদালত তা নামঞ্জুর করেন।

 

কালের চিঠি / আলিফ

Tag :

অবন্তিকার আত্মহত্যা: জামিনে মুক্ত অভিযুক্ত দ্বীন ইসলাম

Update Time : ০৩:৫০:৩১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মে ২০২৪

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাইরুজ সাদাফ অবন্তিকাকে আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলায় অভিযুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। আজ বুধবার (৮ মে) হাইকোর্ট থেকে এ মামলায় জামিন পান তিনি।

পরে বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার আব্দুল্লাহ আল মামুন।

গত ১৫ মার্চ রাতে ফেসবুক স্ট্যাটাসে সহকারী প্রক্টর ও সহপাঠীকে দায়ী করে আত্মহত্যা করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী অবন্তিকা। সেদিন মধ্যরাত থেকেই উত্তাল হয়ে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। ক্ষোভে ফেটে পড়েন সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের দ্রুত বিচারের দাবিতে রাতভর ক্যাম্পাসে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন তারা।

ওই রাতেই সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলামকে অব্যাহতি ও সহপাঠী আম্মান সিদ্দিকীকে সাময়িক বহিষ্কারের কথা জানায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

পরদিন ১৬ মার্চ অবন্তিকার মা তাহমিনা বেগম কুমিল্লার কোতোয়ালি মডেল থানায় সহপাঠী রায়হান সিদ্দিক ওরফে আম্মান ও সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলামকে আসামি করে আত্মহত্যার প্ররোচনার দায়ে মামলা করেন। এদিন সন্ধ্যায় ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশের লালবাগ বিভাগ তাদের গ্রেফতার করে।

এরপর তাদের আদালতে তোলা হলে আম্মান সিদ্দিকীর দুইদিন এবং দ্বীন ইসলামের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। রিমান্ড শেষে তাদের জামিন চাওয়া হলে আদালত তা নামঞ্জুর করেন।

 

কালের চিঠি / আলিফ