রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘরের মাঠে পিএসজিকে হারিয়ে ফাইনালে এক পা ডর্টমুন্ডের।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দ্বিতীয় সেমিফাইনালের প্রথম লেগে পিএসজিকে অথিয়েতা দেয় বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। এদিন ডর্টমুন্ড ঘরের মাঠে গ্যালারিতে হলুদের ঢেউ দেখেছে ফরাসি ক্লাবটি। এই ম্যাচে পিএসজি ১-০ গোলে পরাস্থ করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে এক পা দিয়ে রেখেছে জার্মান ক্লাবটি।

বুধবার (১ মে) দিবাগত রাতে সিগনাল এদুনা পার্কে শুরু থেকে আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতে থাকে স্বাগতিকরা। ম্যাচের ১৪তম মিনিটে প্রথম শট নেয় ডর্টমুন্ড। অসুস্থতা কাটিয়ে ফেরা মিডফিল্ডার মার্সেল সাবিৎজার বল পান বক্সে। দুরূহ কোণ থেকে তার প্রচেষ্টা এগিয়ে এসে রুখে দেন গোলরক্ষক জানলুইজি দোন্নারুম্মা।

ছোট ছোট পাসে বল নিজেদের দখলে রেখে খেলতে থাকে জামান ক্লাবটি। তবে কাঙ্খিত গোলের দেখা পায় ৩৬ মিনিটে। ডিফেন্ডার নিকো শ্লটারবেক নিজেদের অর্ধ থেকে বল বাড়ান উঁচু করে। অফসাইডের ফাঁদ এড়িয়ে প্রথম স্পর্শে বল দারুণভাবে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বক্সে ঢুকে বাঁ পায়ের শটে দোন্নারুম্মাকে পরাস্ত করেন জার্মান ফরোয়ার্ড ফুয়েলখুগ।

এদিকে ৪২তম মিনিটে আরেক ধাক্কা খায় পিএসজি। অ্যাঙ্কেলে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন অভিজ্ঞ ফরাসি সেন্টার-ব্যাক লুকা এরনঁদেজ। তার বদলি নামেন তরুণ ব্রাজিলিয়ান সেন্টার-ব্যাক লুকাস বেরাওদু। তবে শেষ পর্যন্ত ১-০ তে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় ডর্টমুন্ড।

দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে নেমে সমতায় ফিরতে মরিয়া হয়ে ওঠে পিএসজি। প্রথমার্ধে না পারলেও দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে নিজেদের মেলে ধরে পিএসজি। ৪৮তম মিনিটে লক্ষ্যে প্রথম শট নিতে পারে তারা। বারকোলার সেই শট ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক।

৫১তম মিনিটে ভাগ্যের ফেরে গোল পায়নি পিএসজি। প্রথমার্ধে নিষ্প্রভ থাকা কিলিয়ান এমবাপ্পের শট লাগে দূরের পোস্টে। পরক্ষণে আশরাফ হাকিমির নিচু শট লাগে আরেক পোস্টে।

৬০তম মিনিটে সুযোগ পায় স্বাগতিকরা। বক্সে ভালো পজিশনে বল পেয়ে উড়িয়ে মারেন ফুয়েলখুগ। ৭২তম মিনিটে আরেকটি সুযোগ পান দেম্বেলে। এমবাপ্পের পাসে সাবেক বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডের শট ব্যর্থ করে দেন গোলরক্ষক।

নির্ধারিত সময়ের তিন মিনিট বাকি থাকতে বড় হাত ছাড়া করে সফরকারীরা। ভিতিনিয়ার ক্রসে বক্সের ভেতর থেকে ফাবিয়ান রুইসের হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যে থাকেনি। বাকি সময়ে আর সুযোগ মেলেনি। তাই ১-০ ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে জামার্ন জায়ান্টরা।

এই ম্যাচে পিএসজি হারলেও ব্যবধানটা খুব বড় নয়। দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে যাওয়ার ভালো সুযোগ এখনও আছে ফরাসি ক্লাবটির।

সেই লক্ষ্যে আগামী মঙ্গলবার ঘরের মাঠে ফিরতি লেগে নামবে তারা। এর আগে ঘরের মাঠেই ডর্টমুন্ডকে ২-০ গোলে হারিয়ে আসরের পথচলা শুরু করেছিল লিগ ওয়ানের দলটি।

কালের চিঠি/ফাহিম

Tag :

ঘরের মাঠে পিএসজিকে হারিয়ে ফাইনালে এক পা ডর্টমুন্ডের।

Update Time : ০৬:৩৬:১৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০২৪

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দ্বিতীয় সেমিফাইনালের প্রথম লেগে পিএসজিকে অথিয়েতা দেয় বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। এদিন ডর্টমুন্ড ঘরের মাঠে গ্যালারিতে হলুদের ঢেউ দেখেছে ফরাসি ক্লাবটি। এই ম্যাচে পিএসজি ১-০ গোলে পরাস্থ করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে এক পা দিয়ে রেখেছে জার্মান ক্লাবটি।

বুধবার (১ মে) দিবাগত রাতে সিগনাল এদুনা পার্কে শুরু থেকে আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতে থাকে স্বাগতিকরা। ম্যাচের ১৪তম মিনিটে প্রথম শট নেয় ডর্টমুন্ড। অসুস্থতা কাটিয়ে ফেরা মিডফিল্ডার মার্সেল সাবিৎজার বল পান বক্সে। দুরূহ কোণ থেকে তার প্রচেষ্টা এগিয়ে এসে রুখে দেন গোলরক্ষক জানলুইজি দোন্নারুম্মা।

ছোট ছোট পাসে বল নিজেদের দখলে রেখে খেলতে থাকে জামান ক্লাবটি। তবে কাঙ্খিত গোলের দেখা পায় ৩৬ মিনিটে। ডিফেন্ডার নিকো শ্লটারবেক নিজেদের অর্ধ থেকে বল বাড়ান উঁচু করে। অফসাইডের ফাঁদ এড়িয়ে প্রথম স্পর্শে বল দারুণভাবে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বক্সে ঢুকে বাঁ পায়ের শটে দোন্নারুম্মাকে পরাস্ত করেন জার্মান ফরোয়ার্ড ফুয়েলখুগ।

এদিকে ৪২তম মিনিটে আরেক ধাক্কা খায় পিএসজি। অ্যাঙ্কেলে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন অভিজ্ঞ ফরাসি সেন্টার-ব্যাক লুকা এরনঁদেজ। তার বদলি নামেন তরুণ ব্রাজিলিয়ান সেন্টার-ব্যাক লুকাস বেরাওদু। তবে শেষ পর্যন্ত ১-০ তে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় ডর্টমুন্ড।

দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে নেমে সমতায় ফিরতে মরিয়া হয়ে ওঠে পিএসজি। প্রথমার্ধে না পারলেও দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে নিজেদের মেলে ধরে পিএসজি। ৪৮তম মিনিটে লক্ষ্যে প্রথম শট নিতে পারে তারা। বারকোলার সেই শট ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক।

৫১তম মিনিটে ভাগ্যের ফেরে গোল পায়নি পিএসজি। প্রথমার্ধে নিষ্প্রভ থাকা কিলিয়ান এমবাপ্পের শট লাগে দূরের পোস্টে। পরক্ষণে আশরাফ হাকিমির নিচু শট লাগে আরেক পোস্টে।

৬০তম মিনিটে সুযোগ পায় স্বাগতিকরা। বক্সে ভালো পজিশনে বল পেয়ে উড়িয়ে মারেন ফুয়েলখুগ। ৭২তম মিনিটে আরেকটি সুযোগ পান দেম্বেলে। এমবাপ্পের পাসে সাবেক বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডের শট ব্যর্থ করে দেন গোলরক্ষক।

নির্ধারিত সময়ের তিন মিনিট বাকি থাকতে বড় হাত ছাড়া করে সফরকারীরা। ভিতিনিয়ার ক্রসে বক্সের ভেতর থেকে ফাবিয়ান রুইসের হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যে থাকেনি। বাকি সময়ে আর সুযোগ মেলেনি। তাই ১-০ ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে জামার্ন জায়ান্টরা।

এই ম্যাচে পিএসজি হারলেও ব্যবধানটা খুব বড় নয়। দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে যাওয়ার ভালো সুযোগ এখনও আছে ফরাসি ক্লাবটির।

সেই লক্ষ্যে আগামী মঙ্গলবার ঘরের মাঠে ফিরতি লেগে নামবে তারা। এর আগে ঘরের মাঠেই ডর্টমুন্ডকে ২-০ গোলে হারিয়ে আসরের পথচলা শুরু করেছিল লিগ ওয়ানের দলটি।

কালের চিঠি/ফাহিম