রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাজা নীতি নিয়ে মতপার্থক্য থাকায় চাকরি ছেড়েছি

গাজায় ইসরাইলের অভিযান ইস্যুতে মতপার্থক্যের জেরে এবার পদ ছাড়লেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হালা রাহরিত।

গাজা নিয়ে মার্কিন নীতির প্রতিবাদে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে স্বেচ্ছায় চাকরি ছেড়ে দেওয়া তৃতীয় ব্যক্তি তিনি। আরবি ভাষার মুখপাত্র ছিলেন রাহরিত।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য বলছে, হালা রাহরিত দুবাইয়ের আঞ্চলিক গণমাধ্যম কেন্দ্রের (হাব) উপপরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছিলেন। প্রায় দুই দশক আগে মন্ত্রণালয়ে যোগ দিয়েছিলেন হালা রাহরিত। শুরুতে তিনি রাজনৈতিক ও মানবাধিকার কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করতেন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম লিংকডইনে দেওয়া এক বার্তায় হালা রাহরিত বলেন, টানা ১৮ বছর আমি মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে কাজ করেছি। চলতি এপ্রিলে পদত্যাগ করেছি। গাজা নীতি নিয়ে মতপার্থক্য থাকায় চাকরি ছেড়েছি আমি।

গাজায় চলমান যুদ্ধ নিয়ে মার্কিন প্রশাসনের নীতি সমর্থন করতে না পারায় মাসখানেক আগে পদ ছাড়েন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মানবাধিকার ব্যুরোর কর্মকর্তা অ্যানেল সিলাইন। এর আগে গত অক্টোবরে একই কারণে পদত্যাগ করেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা জোস পল।

কালের চিঠি / আশিকুর।

Tag :

গাজা নীতি নিয়ে মতপার্থক্য থাকায় চাকরি ছেড়েছি

Update Time : ০৬:১৬:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ এপ্রিল ২০২৪

গাজায় ইসরাইলের অভিযান ইস্যুতে মতপার্থক্যের জেরে এবার পদ ছাড়লেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হালা রাহরিত।

গাজা নিয়ে মার্কিন নীতির প্রতিবাদে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে স্বেচ্ছায় চাকরি ছেড়ে দেওয়া তৃতীয় ব্যক্তি তিনি। আরবি ভাষার মুখপাত্র ছিলেন রাহরিত।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য বলছে, হালা রাহরিত দুবাইয়ের আঞ্চলিক গণমাধ্যম কেন্দ্রের (হাব) উপপরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছিলেন। প্রায় দুই দশক আগে মন্ত্রণালয়ে যোগ দিয়েছিলেন হালা রাহরিত। শুরুতে তিনি রাজনৈতিক ও মানবাধিকার কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করতেন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম লিংকডইনে দেওয়া এক বার্তায় হালা রাহরিত বলেন, টানা ১৮ বছর আমি মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে কাজ করেছি। চলতি এপ্রিলে পদত্যাগ করেছি। গাজা নীতি নিয়ে মতপার্থক্য থাকায় চাকরি ছেড়েছি আমি।

গাজায় চলমান যুদ্ধ নিয়ে মার্কিন প্রশাসনের নীতি সমর্থন করতে না পারায় মাসখানেক আগে পদ ছাড়েন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মানবাধিকার ব্যুরোর কর্মকর্তা অ্যানেল সিলাইন। এর আগে গত অক্টোবরে একই কারণে পদত্যাগ করেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা জোস পল।

কালের চিঠি / আশিকুর।