শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিগগিরই তাপমাত্রা কমার কোনো সম্ভাবনা নেই

আবহাওয়া অধিদপ্তর বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) আরও তিন দিনের তাপপ্রবাহ সতর্কতা (হিট অ্যালার্ট) জারি করেছে। এ নিয়ে চলতি মাসে তৃতীয় দফা হিট অ্যালার্ট জারি করা হল। আগামী শনিবার পর্যন্ত এই সতর্কতা বজায় থাকবে। তবে এর পরও তাপমাত্রা শিগগিরই কমার খুব একটা সম্ভাবনা নেই। চলতি মাসের বাকি দিনগুলোতেও তাপপ্রবাহ বজায় থাকতে পারে।

অধিদপ্তর বলছে, এপ্রিলে তাপপ্রবাহ নিয়ে কোনো সুখবর নেই। মাসের বাকি দিনগুলোতেও হিট অ্যালার্ট থাকার সম্ভাবনা আছে। তবে মে মাসের শুরুতে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বৃষ্টি হতে পারে। পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, দেশের ওপর দিয়ে চলমান তাপপ্রবাহ ২৫ এপ্রিল থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা অব্যাহত থাকতে পারে। এ সময় জলীয় বাষ্পের আধিক্যের কারণে অস্বস্তি বাড়তে পারে।

এ বিষয়ে আবহাওয়াবিদ মো. শাহীনুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, এপ্রিলের বাকি দিনগুলোতে বৃষ্টি নিয়ে কোনো সুখবর নেই। যদিও মে মাসের শুরুতে দেশের সিলেট, ময়মনসিংহ ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। তবে তাতে দেশের ওপর চলমান তাপপ্রবাহের তেমন কোনো পরিবর্তন হবে না।

শাহীনুল ইসলাম আরও বলেন, এই তাপপ্রবাহের সতর্কতার (হিট অ্যালার্ট) পর হয়তো আবারও সতর্কতা দেওয়া হতে পারে। যদি দেশের পশ্চিমে অবস্থিত ভারতের বিহার, ওডিশা ও পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টি হয়, তাহলে তাপপ্রবাহ কমতে পারে। এখন যে গরম, তা এই অংশ থেকেই আসছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, গতকাল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে; ৪২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা অতি তীব্র তাপপ্রবাহ। যশোর ছাড়াও খুলনা বিভাগের পাঁচটি অঞ্চলে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি ছিল। এর মধ্যে চুয়াডাঙ্গায় ছিল ৪২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় ঢাকার তাপমাত্রা ছিল ৩৯ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া রাজশাহী বিভাগের রাজশাহী ও ঈশ্বরদীতে তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ৪১ দশমিক ৯ ও ৪১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

পূর্বাভাসে আরও বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে আজ শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা ও ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে এবং সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে। চুয়াডাঙ্গা ও যশোর জেলাসমূহের ওপর দিয়ে অতি তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

দেশের টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, রাজশাহী, পাবনা, দিনাজপুর ও সৈয়দপুর জেলাসহ খুলনা বিভাগের অন্যান্য জেলার ওপর দিয়ে প্রচণ্ড তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং ঢাকা, মাদারীপুর, কিশোরগঞ্জ, নরসিংদী, বগুড়া, নওগাঁ, সিরাজগঞ্জ, রংপুর, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, পঞ্চগড়, ময়মনসিংহ, মৌলভীবাজার, রাঙামাটি, চাঁদপুর, ফেনী, বান্দরবান ও নোয়াখালী জেলাসহ বরিশাল বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

কালের চিঠি / আশিকুর।

Tag :

শিগগিরই তাপমাত্রা কমার কোনো সম্ভাবনা নেই

Update Time : ০৬:৩৬:৩১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০২৪

আবহাওয়া অধিদপ্তর বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) আরও তিন দিনের তাপপ্রবাহ সতর্কতা (হিট অ্যালার্ট) জারি করেছে। এ নিয়ে চলতি মাসে তৃতীয় দফা হিট অ্যালার্ট জারি করা হল। আগামী শনিবার পর্যন্ত এই সতর্কতা বজায় থাকবে। তবে এর পরও তাপমাত্রা শিগগিরই কমার খুব একটা সম্ভাবনা নেই। চলতি মাসের বাকি দিনগুলোতেও তাপপ্রবাহ বজায় থাকতে পারে।

অধিদপ্তর বলছে, এপ্রিলে তাপপ্রবাহ নিয়ে কোনো সুখবর নেই। মাসের বাকি দিনগুলোতেও হিট অ্যালার্ট থাকার সম্ভাবনা আছে। তবে মে মাসের শুরুতে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বৃষ্টি হতে পারে। পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, দেশের ওপর দিয়ে চলমান তাপপ্রবাহ ২৫ এপ্রিল থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা অব্যাহত থাকতে পারে। এ সময় জলীয় বাষ্পের আধিক্যের কারণে অস্বস্তি বাড়তে পারে।

এ বিষয়ে আবহাওয়াবিদ মো. শাহীনুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, এপ্রিলের বাকি দিনগুলোতে বৃষ্টি নিয়ে কোনো সুখবর নেই। যদিও মে মাসের শুরুতে দেশের সিলেট, ময়মনসিংহ ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। তবে তাতে দেশের ওপর চলমান তাপপ্রবাহের তেমন কোনো পরিবর্তন হবে না।

শাহীনুল ইসলাম আরও বলেন, এই তাপপ্রবাহের সতর্কতার (হিট অ্যালার্ট) পর হয়তো আবারও সতর্কতা দেওয়া হতে পারে। যদি দেশের পশ্চিমে অবস্থিত ভারতের বিহার, ওডিশা ও পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টি হয়, তাহলে তাপপ্রবাহ কমতে পারে। এখন যে গরম, তা এই অংশ থেকেই আসছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, গতকাল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে; ৪২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা অতি তীব্র তাপপ্রবাহ। যশোর ছাড়াও খুলনা বিভাগের পাঁচটি অঞ্চলে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি ছিল। এর মধ্যে চুয়াডাঙ্গায় ছিল ৪২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় ঢাকার তাপমাত্রা ছিল ৩৯ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া রাজশাহী বিভাগের রাজশাহী ও ঈশ্বরদীতে তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ৪১ দশমিক ৯ ও ৪১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

পূর্বাভাসে আরও বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে আজ শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা ও ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে এবং সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে। চুয়াডাঙ্গা ও যশোর জেলাসমূহের ওপর দিয়ে অতি তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

দেশের টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, রাজশাহী, পাবনা, দিনাজপুর ও সৈয়দপুর জেলাসহ খুলনা বিভাগের অন্যান্য জেলার ওপর দিয়ে প্রচণ্ড তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং ঢাকা, মাদারীপুর, কিশোরগঞ্জ, নরসিংদী, বগুড়া, নওগাঁ, সিরাজগঞ্জ, রংপুর, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, পঞ্চগড়, ময়মনসিংহ, মৌলভীবাজার, রাঙামাটি, চাঁদপুর, ফেনী, বান্দরবান ও নোয়াখালী জেলাসহ বরিশাল বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

কালের চিঠি / আশিকুর।