শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এই গরমে তীব্র পানি শূন্যতার লক্ষণ জেনে নিন

গরমের দাপটে জনজীবন অতীষ্ঠ হয়ে পড়েছে। গরম আর তীব্র রোদে শরীরের সব পানি শুকিয়ে যাচ্ছে। পানি খেয়েও স্বস্তি মিটছে না। গরম যত বাড়ছে শরীরে ততই পানিশূন্যতার আশঙ্কা বাড়ছে। রোদে বের হয়ে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, সাধারণত ঘামের সঙ্গে পানি বেরিয়ে গিয়ে অথবা প্রচণ্ড গরমে শরীর থেকে পানি বেরিয়ে শরীরে পানিশূন্যতা তৈরি হয়। এর ফলে ডায়রিয়া, বমি হতে শুরু করে।

তবে আমাদের শরীরকে এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যেন পানি শূন্যতা হলে ব্রেইন নিজ থেকেই পানি পান করার অনুভূতি তৈরি করে এবং কিডনিকে প্রসাব কমিয়ে দিয়ে পানি সংরক্ষণ করার সিগনাল দেয়। তবুও পানি শূন্যতার লক্ষণগুলো আমাদের সবার জেনে নেয়া জরুরি।

শরীরে পানির ঘাটতি হলে, খুব বেশি তৃষ্ণা অনুভূত হতে পারে, সেই সাথে মুখ হয়ে যেতে পারে শুকনো। দেখা দিতে পারে সামান্য মাথা ব্যথা। আসতে পারে ক্লান্তি। এছাড়া প্রস্রাবের রঙ হতে পারে আগের চেয়ে গাঢ় আর তাতে হতে পারে তীব্র দুর্গন্ধ। এসব লক্ষণের পাশাপাশি কাজের স্পৃহা কমে যেতে পারে।

পর্যাপ্ত পানি পান করার পরও যদি দেখা যায়, তৃষ্ণা কমছে না। তবে অতি দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।

 

কালের চিঠি / আলিফ

Tag :

এই গরমে তীব্র পানি শূন্যতার লক্ষণ জেনে নিন

Update Time : ০৬:৩৪:০৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

গরমের দাপটে জনজীবন অতীষ্ঠ হয়ে পড়েছে। গরম আর তীব্র রোদে শরীরের সব পানি শুকিয়ে যাচ্ছে। পানি খেয়েও স্বস্তি মিটছে না। গরম যত বাড়ছে শরীরে ততই পানিশূন্যতার আশঙ্কা বাড়ছে। রোদে বের হয়ে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, সাধারণত ঘামের সঙ্গে পানি বেরিয়ে গিয়ে অথবা প্রচণ্ড গরমে শরীর থেকে পানি বেরিয়ে শরীরে পানিশূন্যতা তৈরি হয়। এর ফলে ডায়রিয়া, বমি হতে শুরু করে।

তবে আমাদের শরীরকে এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যেন পানি শূন্যতা হলে ব্রেইন নিজ থেকেই পানি পান করার অনুভূতি তৈরি করে এবং কিডনিকে প্রসাব কমিয়ে দিয়ে পানি সংরক্ষণ করার সিগনাল দেয়। তবুও পানি শূন্যতার লক্ষণগুলো আমাদের সবার জেনে নেয়া জরুরি।

শরীরে পানির ঘাটতি হলে, খুব বেশি তৃষ্ণা অনুভূত হতে পারে, সেই সাথে মুখ হয়ে যেতে পারে শুকনো। দেখা দিতে পারে সামান্য মাথা ব্যথা। আসতে পারে ক্লান্তি। এছাড়া প্রস্রাবের রঙ হতে পারে আগের চেয়ে গাঢ় আর তাতে হতে পারে তীব্র দুর্গন্ধ। এসব লক্ষণের পাশাপাশি কাজের স্পৃহা কমে যেতে পারে।

পর্যাপ্ত পানি পান করার পরও যদি দেখা যায়, তৃষ্ণা কমছে না। তবে অতি দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।

 

কালের চিঠি / আলিফ