রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলা সংস্কৃতি ধ্বংসেও কাজ করছে সরকার: রিজভী

রাজনীতির মতো সাংস্কৃতিক আধিপত্য বিস্তার ও আগ্রাসনের মাধ্যমে বাংলা সংস্কৃতি ধ্বংসেও সরকার কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রোববার বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক সংস্থা জাসাস আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী অভিযোগ করেন, প্রভুদের খুশি করতেই সেদেশের সংস্কৃতি বাংলাদেশের বলে চালাতে চায় আওয়ামী লীগ সরকার। যারা গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে চায়, তারা কেউ ভালো নেই। এবার ঈদে কেনাকাটা অনেক কম হয়েছে। চালের দাম চড়া রয়েছে। সরকারের লোকজন সিন্ডিকেট করে বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে। খাদ্যপণ্যটির দর কমানোর কথা বলে সরকার আরও বাড়িয়েছে।

তিনি বলেন, ঈদ পরিণত হয়েছে কান্নায়। সব জায়গায় লুটপাতের ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে। সিন্ডিকেন্ডের কারণে ব্যাংকগুলো মুখ থুবড়ে পড়ছে। ঋণ খেলাপিরা সরকারের ঘনিষ্ঠ লোক। ঋণের পর ঋণ নেওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হচ্ছে তাদের।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওয়ায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ রিজভী বলেন, আপনি কোন সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করেন? বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সঙ্গে বিএনপি জড়িত। পানি, সালাম, মাশাআল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ- এগুলো দেওয়ার বিরোধিতা করছেন? সংস্কৃতি পরিবর্তনের চেষ্টা করছে সরকার। আপনি ‘তলে তলে’ প্রভুদের খুশি করতে চাচ্ছেন।

বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, বিএনপি এক হাজার ইফতার পার্টি করতেই পারে। গরিব, দুঃখীদের নিয়ে তা করেছে। ভারত থেকে নায়ক-নায়িকা নিয়ে এসে পার্টি করেন, ওখানে টাকা খরচ হয় না?

কালের চিঠি / আশিকুর।

Tag :
Popular Post

কোটা বিরোধী আন্দোলনে ঢাকায় ২ শিক্ষার্থী নিহত

বাংলা সংস্কৃতি ধ্বংসেও কাজ করছে সরকার: রিজভী

Update Time : ০৫:০৯:৪৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

রাজনীতির মতো সাংস্কৃতিক আধিপত্য বিস্তার ও আগ্রাসনের মাধ্যমে বাংলা সংস্কৃতি ধ্বংসেও সরকার কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রোববার বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক সংস্থা জাসাস আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী অভিযোগ করেন, প্রভুদের খুশি করতেই সেদেশের সংস্কৃতি বাংলাদেশের বলে চালাতে চায় আওয়ামী লীগ সরকার। যারা গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে চায়, তারা কেউ ভালো নেই। এবার ঈদে কেনাকাটা অনেক কম হয়েছে। চালের দাম চড়া রয়েছে। সরকারের লোকজন সিন্ডিকেট করে বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে। খাদ্যপণ্যটির দর কমানোর কথা বলে সরকার আরও বাড়িয়েছে।

তিনি বলেন, ঈদ পরিণত হয়েছে কান্নায়। সব জায়গায় লুটপাতের ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে। সিন্ডিকেন্ডের কারণে ব্যাংকগুলো মুখ থুবড়ে পড়ছে। ঋণ খেলাপিরা সরকারের ঘনিষ্ঠ লোক। ঋণের পর ঋণ নেওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হচ্ছে তাদের।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওয়ায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ রিজভী বলেন, আপনি কোন সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করেন? বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সঙ্গে বিএনপি জড়িত। পানি, সালাম, মাশাআল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ- এগুলো দেওয়ার বিরোধিতা করছেন? সংস্কৃতি পরিবর্তনের চেষ্টা করছে সরকার। আপনি ‘তলে তলে’ প্রভুদের খুশি করতে চাচ্ছেন।

বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, বিএনপি এক হাজার ইফতার পার্টি করতেই পারে। গরিব, দুঃখীদের নিয়ে তা করেছে। ভারত থেকে নায়ক-নায়িকা নিয়ে এসে পার্টি করেন, ওখানে টাকা খরচ হয় না?

কালের চিঠি / আশিকুর।