রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লারার সেই মাইলফলক আজও ছুঁতে পারেনি কেউ ।

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে কিংবদন্তি ক্রিকেটার ব্রায়ান চার্লস লারা। ত্রিনিদাদেদ রাজপুত্র একটা সময়ে ক্রিকেটের ২২ গজকে রীতিমতো শাসন করেছেন। টেস্ট ইতিহাসে সর্বাধিক রানের নজিরও রয়েছে তার দখলে। ২০ বছর আগে এই দিনে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যান্টিগা টেস্টে করা তার অপরাজিত ৪০০ রান এখনও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের দীর্ঘতম ফরম্যাটে করা সর্বোচ্চ রান।

২০ বছর কেটে গেল, আজও এই রেকর্ড স্পর্শ করতে পারেননি কোনো ব্যাটসম্যান! যা ২০০৪ সালের ১২ এপ্রিল করেছিলেন কিংবদন্তি ব্রায়ান লারা। ক্রিকেট গ্রহের প্রথম বাসিন্দা হিসেবে টেস্টে একাই করেছিলেন ৪০০ রান। অপরাজিত থেকেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠ ছাড়েন তিনি। নিজের দেশের মাটিতে ঐতিহাসিক ইনিংস খেলেন লারা। সাক্ষী ছিল অ্য়ান্টিগা রিক্রিয়েশন স্টেডিয়াম।

ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের চতুর্থ ম্যাচের তৃতীয় দিনে লারা করেছিলেন ৪০০। মাইকেল ভনের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তখনকার ক্যারিবীয় অধিনায়ক লারা। তিনি যখন ক্রিজে আসেন, তখন ওয়েস্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৯৮ রান। এরপরেই সকলকে অবাক করার খেলা শুরু করেন প্রিন্স।

৪৩টি চার ও ৪টি ছয়ের সৌজন্যে ইংল্যান্ডের বোলিং লাইন-আপ গুড়িয়ে দেন লারা। তার চওড়া ব্যাটে ভর করেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম ইনিংসে স্কোরবোর্ডে তুলেছিল ৭ উইকেট হারিয়ে রেকর্ড ৭৫১ রান। লারার আগে টেস্ট ক্রিকেটে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রান ছিল অস্ট্রেলিয়ার ম্যাথিউ হেইডেনের। তিনি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০০৩ সালে ৩৮০ করেছিলেন। অদ্ভুতভাবে হেইডেন সেবার ভেঙেছিলেন লারার ১৯৯৪ সালে করা ৩৭৫ রানের রেকর্ড। তবে ফের হেইডেনকে টপকে অনন্য মাইলফলক স্পর্শ করেন লারা। যদিও লারার ৪০০ রানের ইনিংসের ম্যাচে জয় পায়নি কোনো দল। ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সেই ম্যাচটি ড্র হয়েছিল।

লারা ওয়ারউইকশায়ারের হয়ে কাউন্টি ক্রিকেট খেলেও রেকর্ড করেছিলেন। ডারহামের বিরুদ্ধে ৫০১ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। ২০০৭ সালে ক্রিকেটকে আলবিদা জানানে লারা। সব ফরম্যাট মিলিয়ে ২২ হাজার ৩৫৮ রান করেছিলেন ক্যারিবীয় এই কিংবদন্তি। ১৩৩টি টেস্টে তিনি করেন ১১ হাজার ৯৫৩ রান। ২৯৯টি একদিনের ম্যাচে লারা করেন ১০ হাজার ৪০৫ রান। লারার ঝুলিতে আছে ৫৩টি সেঞ্চুরি। লারা শুধু ওয়েস্ট ইন্ডিজেরই নন, সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্য়ানদেরই একজন।

কালের চিঠি/ ফাহিম

Tag :
Popular Post

কোটা বিরোধী আন্দোলনে ঢাকায় ২ শিক্ষার্থী নিহত

লারার সেই মাইলফলক আজও ছুঁতে পারেনি কেউ ।

Update Time : ০৬:৫৫:২৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে কিংবদন্তি ক্রিকেটার ব্রায়ান চার্লস লারা। ত্রিনিদাদেদ রাজপুত্র একটা সময়ে ক্রিকেটের ২২ গজকে রীতিমতো শাসন করেছেন। টেস্ট ইতিহাসে সর্বাধিক রানের নজিরও রয়েছে তার দখলে। ২০ বছর আগে এই দিনে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যান্টিগা টেস্টে করা তার অপরাজিত ৪০০ রান এখনও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের দীর্ঘতম ফরম্যাটে করা সর্বোচ্চ রান।

২০ বছর কেটে গেল, আজও এই রেকর্ড স্পর্শ করতে পারেননি কোনো ব্যাটসম্যান! যা ২০০৪ সালের ১২ এপ্রিল করেছিলেন কিংবদন্তি ব্রায়ান লারা। ক্রিকেট গ্রহের প্রথম বাসিন্দা হিসেবে টেস্টে একাই করেছিলেন ৪০০ রান। অপরাজিত থেকেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠ ছাড়েন তিনি। নিজের দেশের মাটিতে ঐতিহাসিক ইনিংস খেলেন লারা। সাক্ষী ছিল অ্য়ান্টিগা রিক্রিয়েশন স্টেডিয়াম।

ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের চতুর্থ ম্যাচের তৃতীয় দিনে লারা করেছিলেন ৪০০। মাইকেল ভনের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তখনকার ক্যারিবীয় অধিনায়ক লারা। তিনি যখন ক্রিজে আসেন, তখন ওয়েস্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৯৮ রান। এরপরেই সকলকে অবাক করার খেলা শুরু করেন প্রিন্স।

৪৩টি চার ও ৪টি ছয়ের সৌজন্যে ইংল্যান্ডের বোলিং লাইন-আপ গুড়িয়ে দেন লারা। তার চওড়া ব্যাটে ভর করেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম ইনিংসে স্কোরবোর্ডে তুলেছিল ৭ উইকেট হারিয়ে রেকর্ড ৭৫১ রান। লারার আগে টেস্ট ক্রিকেটে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রান ছিল অস্ট্রেলিয়ার ম্যাথিউ হেইডেনের। তিনি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০০৩ সালে ৩৮০ করেছিলেন। অদ্ভুতভাবে হেইডেন সেবার ভেঙেছিলেন লারার ১৯৯৪ সালে করা ৩৭৫ রানের রেকর্ড। তবে ফের হেইডেনকে টপকে অনন্য মাইলফলক স্পর্শ করেন লারা। যদিও লারার ৪০০ রানের ইনিংসের ম্যাচে জয় পায়নি কোনো দল। ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সেই ম্যাচটি ড্র হয়েছিল।

লারা ওয়ারউইকশায়ারের হয়ে কাউন্টি ক্রিকেট খেলেও রেকর্ড করেছিলেন। ডারহামের বিরুদ্ধে ৫০১ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। ২০০৭ সালে ক্রিকেটকে আলবিদা জানানে লারা। সব ফরম্যাট মিলিয়ে ২২ হাজার ৩৫৮ রান করেছিলেন ক্যারিবীয় এই কিংবদন্তি। ১৩৩টি টেস্টে তিনি করেন ১১ হাজার ৯৫৩ রান। ২৯৯টি একদিনের ম্যাচে লারা করেন ১০ হাজার ৪০৫ রান। লারার ঝুলিতে আছে ৫৩টি সেঞ্চুরি। লারা শুধু ওয়েস্ট ইন্ডিজেরই নন, সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্য়ানদেরই একজন।

কালের চিঠি/ ফাহিম