রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যৌথ বাহিনীর অভিযান: থানচি-রুমা-রোয়াংছড়ি ভ্রমনে বারণ

সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে নিরাপত্তা বিবেচনায় বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি, থানচিসহ আশপাশের এলাকাগুলোতে পর্যটকদের ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ পর্যটন সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

রুমা উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. দিদারুল আলম ৯ এপ্রিল স্বাক্ষরিত একটি পত্রে এ আদেশ দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন।

শুক্রবার বিকালে বান্দরবান জেলা প্রশাসক শাহ মুজাহিদ উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, জেলার যেসব এলাকাগুলোতে যৌথবাহিনীর সন্ত্রাস বিরোধী অভিযান চলমান রয়েছে সেসব পর্যটন স্পটগুলোতে সব প্রকার পর্যটকদের ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। অন্য এলাকাগুলোতে পর্যটকদের ভ্রমণে কোনো বাঁধা নেই।

প্রশাসন সূত্র জানায়, রুমা-রোয়াংছড়ি ও থানচি এলাকার সব হোটেল মালিকদেরকে কোনো পর্যটক বা ভ্রমণকারীদের হোটেল রুম ভাড়া, স্থানীয় চালকেরা কোনো পর্যটকে যৌথ অভিযান পরিচালিত এলাকার কাছাকাছি পর্যটন স্পটে না নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

প্রসঙ্গত, এর আগে রুমা-থানচিতে ব্যাংক ডাকাতি, মসজিদে হামলা, অস্ত্র-টাকা লুটের ঘটনায় যৌথ অভিযানে আটক ৬১ জনকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

কালের চিঠি / আশিকুর।

Tag :

যৌথ বাহিনীর অভিযান: থানচি-রুমা-রোয়াংছড়ি ভ্রমনে বারণ

Update Time : ০৩:৫৮:৩২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪

সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে নিরাপত্তা বিবেচনায় বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি, থানচিসহ আশপাশের এলাকাগুলোতে পর্যটকদের ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ পর্যটন সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

রুমা উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. দিদারুল আলম ৯ এপ্রিল স্বাক্ষরিত একটি পত্রে এ আদেশ দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন।

শুক্রবার বিকালে বান্দরবান জেলা প্রশাসক শাহ মুজাহিদ উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, জেলার যেসব এলাকাগুলোতে যৌথবাহিনীর সন্ত্রাস বিরোধী অভিযান চলমান রয়েছে সেসব পর্যটন স্পটগুলোতে সব প্রকার পর্যটকদের ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। অন্য এলাকাগুলোতে পর্যটকদের ভ্রমণে কোনো বাঁধা নেই।

প্রশাসন সূত্র জানায়, রুমা-রোয়াংছড়ি ও থানচি এলাকার সব হোটেল মালিকদেরকে কোনো পর্যটক বা ভ্রমণকারীদের হোটেল রুম ভাড়া, স্থানীয় চালকেরা কোনো পর্যটকে যৌথ অভিযান পরিচালিত এলাকার কাছাকাছি পর্যটন স্পটে না নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

প্রসঙ্গত, এর আগে রুমা-থানচিতে ব্যাংক ডাকাতি, মসজিদে হামলা, অস্ত্র-টাকা লুটের ঘটনায় যৌথ অভিযানে আটক ৬১ জনকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

কালের চিঠি / আশিকুর।