রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশ ও বিশ্বে শান্তি কামনা

রাজধানীর হাইকোর্ট সংলগ্ন জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাতে নামাজ শেষে মোনাজাতে দেশ, জনগণ ও মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ ও শান্তি কামনা করে দোয়া চাওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ রুহুল আমিন ইমাম এবং মুয়াজ্জিন ক্বারি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান মোকাব্বির হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

মোনাজাতে যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনের নিপীড়িত মানুষদের জন্য সহযোগিতা কামনা করা হয়। আর বাংলাদেশকে শান্তির দেশ করে দেয়ার দোয়া করা হয়। ডেঙ্গুসহ দুরারোগ্য ব্যাধি থেকে সবাইকে হেফাজত করার দোয়া করা হয়।

জাতীয় ঈদগাহে ঈদের প্রধান জামাতে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি, মন্ত্রিসভার সদস্য, সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদসহ সব শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন। নামাজ শেষে চিরাচরিত ঐতিহ্য অনুযায়ী সবাই কোলাকুলি করেন।

জাতীয় ঈদগাহ মাঠে এবার একসঙ্গে প্রায় ৩৫ হাজার মানুষের নামাজ পড়ার ব্যবস্থা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। ঢাকায় এবার ১৮৪টি ঈদগাহে ও ১ হাজার ৪৮৮টি মসজিদে ঈদের জামাত হবে।

এর আগে, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৭টায়। সকাল ১০টা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে এই মসজিদে পাঁচটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

কালের চিঠি / আলিফ

Tag :

দেশ ও বিশ্বে শান্তি কামনা

Update Time : ০৭:৩৮:৩২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০২৪

রাজধানীর হাইকোর্ট সংলগ্ন জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাতে নামাজ শেষে মোনাজাতে দেশ, জনগণ ও মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ ও শান্তি কামনা করে দোয়া চাওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ রুহুল আমিন ইমাম এবং মুয়াজ্জিন ক্বারি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান মোকাব্বির হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

মোনাজাতে যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনের নিপীড়িত মানুষদের জন্য সহযোগিতা কামনা করা হয়। আর বাংলাদেশকে শান্তির দেশ করে দেয়ার দোয়া করা হয়। ডেঙ্গুসহ দুরারোগ্য ব্যাধি থেকে সবাইকে হেফাজত করার দোয়া করা হয়।

জাতীয় ঈদগাহে ঈদের প্রধান জামাতে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি, মন্ত্রিসভার সদস্য, সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদসহ সব শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন। নামাজ শেষে চিরাচরিত ঐতিহ্য অনুযায়ী সবাই কোলাকুলি করেন।

জাতীয় ঈদগাহ মাঠে এবার একসঙ্গে প্রায় ৩৫ হাজার মানুষের নামাজ পড়ার ব্যবস্থা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। ঢাকায় এবার ১৮৪টি ঈদগাহে ও ১ হাজার ৪৮৮টি মসজিদে ঈদের জামাত হবে।

এর আগে, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৭টায়। সকাল ১০টা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে এই মসজিদে পাঁচটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

কালের চিঠি / আলিফ