শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশে ঢুকে দুই রাখালকে বিএসএফের গুলি

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) বিরুদ্ধে লালমনিরহাট সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকে দুই রাখালকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ার অভিযোগ উঠেছে। তবে এ ঘটনায় কেউই আহত হয়নি।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) দুপুর ২টার দিকে কালিগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর খামারভাতি এলাকার ৯১৩ নম্বর মেইন পিলার সীমান্তে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী রাখালরা হলেন উপজেলার খামারভাতি গ্রামের মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে এনামুল হক (২৮) ও বাবর আলীর ছেলে ইন্টু মিয়া।

স্থানীয়রা জানান, এদিন বাংলাদেশ সীমান্তের জমি দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন রাখাল নামুল হক ও ইন্দু মিয়া। এ সময় তাদের ধাওয়া করে বিএসএফ। তারা দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে বিএসএফ সদস্যরাও বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। তবে রাখাল দুজন সরে গেলে তাদের শরীরে কোনো গুলি লাগেনি। এ ঘটনার পর থেকেই খামারভাতি এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

প্রতিনিয়তই বিএসএফ সদস্যরা বাংলাদেশি রাখালদের ধাওয়া করেন। এমনকি অনেক সময় আটকে মারধর করেন বলে অভিযোগ তুলেছেন ওই দুই রাখাল।

চন্দ্রপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল হামিদ ঘটনার সতত্যা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ছাগলকে ঘাস খাওয়াতে গেলে বিএসএফ বাধা দেয়। পরে বিএসএফ ধাওয়া করলেও পালিয়ে আসার সময় তাদের লক্ষ্য করে বিএসএফ এক রাউন্ড গুলি চালায়। যদিও ওই গুলিতে কেউ আহত হয়নি। তারা দুজনেই ভালো আছেন।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) লালমনিরহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মোফাজ্জল হোসেন এ প্রসঙ্গে বলেন, এ বিষয়ে এখনো আমার কাছে কোনো তথ্য নেই। খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।
কালের চিঠি/ ফাহিম

Tag :

বাংলাদেশে ঢুকে দুই রাখালকে বিএসএফের গুলি

Update Time : ১১:৩২:১৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০২৪

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) বিরুদ্ধে লালমনিরহাট সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকে দুই রাখালকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ার অভিযোগ উঠেছে। তবে এ ঘটনায় কেউই আহত হয়নি।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) দুপুর ২টার দিকে কালিগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর খামারভাতি এলাকার ৯১৩ নম্বর মেইন পিলার সীমান্তে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী রাখালরা হলেন উপজেলার খামারভাতি গ্রামের মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে এনামুল হক (২৮) ও বাবর আলীর ছেলে ইন্টু মিয়া।

স্থানীয়রা জানান, এদিন বাংলাদেশ সীমান্তের জমি দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন রাখাল নামুল হক ও ইন্দু মিয়া। এ সময় তাদের ধাওয়া করে বিএসএফ। তারা দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে বিএসএফ সদস্যরাও বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। তবে রাখাল দুজন সরে গেলে তাদের শরীরে কোনো গুলি লাগেনি। এ ঘটনার পর থেকেই খামারভাতি এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

প্রতিনিয়তই বিএসএফ সদস্যরা বাংলাদেশি রাখালদের ধাওয়া করেন। এমনকি অনেক সময় আটকে মারধর করেন বলে অভিযোগ তুলেছেন ওই দুই রাখাল।

চন্দ্রপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল হামিদ ঘটনার সতত্যা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ছাগলকে ঘাস খাওয়াতে গেলে বিএসএফ বাধা দেয়। পরে বিএসএফ ধাওয়া করলেও পালিয়ে আসার সময় তাদের লক্ষ্য করে বিএসএফ এক রাউন্ড গুলি চালায়। যদিও ওই গুলিতে কেউ আহত হয়নি। তারা দুজনেই ভালো আছেন।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) লালমনিরহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মোফাজ্জল হোসেন এ প্রসঙ্গে বলেন, এ বিষয়ে এখনো আমার কাছে কোনো তথ্য নেই। খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।
কালের চিঠি/ ফাহিম