রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘বান্দরবানের ঘটনাই প্রমাণ করে দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কত ভঙ্গুর’

বান্দরবানের ঘটনা প্রমাণ করে দেশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা কত ভঙ্গুর বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ রোববার (৭ এপ্রিল) রাজধানীর গুলশানে দলীয় চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে আন্দোলন সংগ্রামে ক্ষতিগ্রস্ত নেতা-কর্মীদের ঈদ উপহার বিতরণ অনুষ্ঠানে এ দাবি করেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, বাংলাদেশের সীমান্ত আজ ভয়াবহভাবে আক্রান্ত। কিন্তু সরকার এই সমস্যা সমাধান করতে পারেনি। বান্দবানে কারা হামলা-লুটপাট করছে, তা ঠিকভাবে বলেতেই পারছে না সরকার। যখন কোনো ঘটনার সত্য উদঘাটনে ব্যর্থ হয়, তখনই সরকার জঙ্গি খুঁজে পায় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সারাদেশে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে। বুয়েটের মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্ষমতাসীনরা তাদের নগ্ন থাবা বসিয়েছে। এমন কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই, যেখানে ছাত্রলীগের নৈরাজ্য নেই।

মির্জা ফখরুল বলেন, রাষ্ট্র পরিচালনা করতে গিয়ে সব দিকে ব্যর্থ হয়েছে এই সরকার। শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সব খাতকে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। ক্ষমতায় টিকে থাকতে তারা দেশজুড়ে সৃষ্টি করেছে ভয়াবহ পরিস্থিতি।

ফখরুল আরও বলেন, কষ্টকে শক্তিতে রূপান্তর করতে হবে। তারপর সবাইকে এক্যবদ্ধ হয়ে সরকারের পতন নিশ্চিত করতে হবে। আমরা গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবোই বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

এর আগে, দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, পাহাড়ে সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠির কর্মকাণ্ডে সরকারের রহস্যজনক ভূমিকা ও যোগসূত্র আছে। পুরো ঘটনা সরকারের পরিকল্পিত। সরকারের প্রত্যক্ষ ভূমিকা ছাড়া সন্ত্রাসীরা এমন ঘটনা ঘটাতে পারতো না।

কালের চিঠি / আলিফ

Tag :
Popular Post

কোটা বিরোধী আন্দোলনে ঢাকায় ২ শিক্ষার্থী নিহত

‘বান্দরবানের ঘটনাই প্রমাণ করে দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কত ভঙ্গুর’

Update Time : ০৪:০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ এপ্রিল ২০২৪

বান্দরবানের ঘটনা প্রমাণ করে দেশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা কত ভঙ্গুর বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ রোববার (৭ এপ্রিল) রাজধানীর গুলশানে দলীয় চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে আন্দোলন সংগ্রামে ক্ষতিগ্রস্ত নেতা-কর্মীদের ঈদ উপহার বিতরণ অনুষ্ঠানে এ দাবি করেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, বাংলাদেশের সীমান্ত আজ ভয়াবহভাবে আক্রান্ত। কিন্তু সরকার এই সমস্যা সমাধান করতে পারেনি। বান্দবানে কারা হামলা-লুটপাট করছে, তা ঠিকভাবে বলেতেই পারছে না সরকার। যখন কোনো ঘটনার সত্য উদঘাটনে ব্যর্থ হয়, তখনই সরকার জঙ্গি খুঁজে পায় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সারাদেশে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে। বুয়েটের মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্ষমতাসীনরা তাদের নগ্ন থাবা বসিয়েছে। এমন কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই, যেখানে ছাত্রলীগের নৈরাজ্য নেই।

মির্জা ফখরুল বলেন, রাষ্ট্র পরিচালনা করতে গিয়ে সব দিকে ব্যর্থ হয়েছে এই সরকার। শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সব খাতকে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। ক্ষমতায় টিকে থাকতে তারা দেশজুড়ে সৃষ্টি করেছে ভয়াবহ পরিস্থিতি।

ফখরুল আরও বলেন, কষ্টকে শক্তিতে রূপান্তর করতে হবে। তারপর সবাইকে এক্যবদ্ধ হয়ে সরকারের পতন নিশ্চিত করতে হবে। আমরা গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবোই বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

এর আগে, দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, পাহাড়ে সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠির কর্মকাণ্ডে সরকারের রহস্যজনক ভূমিকা ও যোগসূত্র আছে। পুরো ঘটনা সরকারের পরিকল্পিত। সরকারের প্রত্যক্ষ ভূমিকা ছাড়া সন্ত্রাসীরা এমন ঘটনা ঘটাতে পারতো না।

কালের চিঠি / আলিফ