রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুগদায় কিশোর গ্যাংয়ের তাণ্ডব

মাদক বেচাকেনায় বাধা দেয়ায় রাজধানীর মুগদা এলাকায় প্রকাশ্য দেশীয় অস্ত্র হাতে এক পরিবারের উপর হামলা চালিয়েছে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা।

ঘটনার শুরু সোমবার মধ্যরাতে, এলাকায় মাদক সেবন এবং বেচা-বিক্রিতে বাঁধা দেন স্থানীয় বাসিন্দা রাজন হোসেন। এরপর হয় ব্যাপক তর্কাতর্কি। এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এলাকার কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা।

এ ঘটনার ২৪ ঘন্টা না পেরোতেই, পরদিন সন্ধ্যায় এই মাদক কারবারের মূল হোতা শরিফের নেতৃত্বে ১৫ থেকে ২০ জন কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য রাম দা, কিরিচ এবং লোহার রড নিয়ে হামলা চালায় রাজনের বাড়িতে। সেসময় বাসায় কেউ না থাকলেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো এলাকায়।

ভূক্তভূগী রাজন বলেন, কিশোর গ্যাংয়ের জন্য প্রতিবাদ করার মতো সাহস এখানে কেউ পায় না। এলাকার সব বাড়িওয়ালাকে হুমকি-ধমকি দেয় তারা। মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলার কারণেই আজকে আমার এমন পরিণতি।

শরিফ ছিলেন মুগদা থানাধীন ৭১ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সহ সভাপতি। তখন থেকেই মুগদার দক্ষিণ মান্ডা এলাকায় গড়ে তোলেন বিশাল কিশোর গ্যাং। অলিগলিতে বসান মাদকের হাট। উত্ত্যক্ত করতেন নারীদেরও।

মুগদা এলাকার একজন নারী জানান, রাস্তায় কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের আড্ডা থামাতে বললে কিংবা নিষেধ করে আরও বেশি করে আড্ডা দেয়।

মাদক সেবন এবং বিক্রির অভিযোগে শরিফকে বহিস্কারও করে ছাত্রলীগ। তবে থেমে যায়নি তার মাদকের কারবার। এ ঘটনার পরপরই তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ডিএমপি’র মুগদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তারিকুজ্জামান বলেছেন, এলাকাবাসী যদি পুলিশকে আগেই জানাতো, তাহলে আরও আগেই ব্যবস্থা নেয়া যেত। কেউ যদি অভিযোগ দেয়, তাৎক্ষণিক আমরা যাই এবং বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখি।

তবে শুধু শরিফ নয়, এই কিশোর গ্যাংয়ের বাকি সদস্যদেরও গ্রেফতারের দাবি এলাকাবাসীর।

কালের চিঠি / আলিফ

Tag :

শ্রেণিকক্ষে যৌন হয়রানির অভিযোগ, ২ শিক্ষককে বরখাস্তের দাবিতে বিদ্যালয়ে তালা

মুগদায় কিশোর গ্যাংয়ের তাণ্ডব

Update Time : ০৫:৫৯:৩৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩ এপ্রিল ২০২৪

মাদক বেচাকেনায় বাধা দেয়ায় রাজধানীর মুগদা এলাকায় প্রকাশ্য দেশীয় অস্ত্র হাতে এক পরিবারের উপর হামলা চালিয়েছে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা।

ঘটনার শুরু সোমবার মধ্যরাতে, এলাকায় মাদক সেবন এবং বেচা-বিক্রিতে বাঁধা দেন স্থানীয় বাসিন্দা রাজন হোসেন। এরপর হয় ব্যাপক তর্কাতর্কি। এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এলাকার কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা।

এ ঘটনার ২৪ ঘন্টা না পেরোতেই, পরদিন সন্ধ্যায় এই মাদক কারবারের মূল হোতা শরিফের নেতৃত্বে ১৫ থেকে ২০ জন কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য রাম দা, কিরিচ এবং লোহার রড নিয়ে হামলা চালায় রাজনের বাড়িতে। সেসময় বাসায় কেউ না থাকলেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো এলাকায়।

ভূক্তভূগী রাজন বলেন, কিশোর গ্যাংয়ের জন্য প্রতিবাদ করার মতো সাহস এখানে কেউ পায় না। এলাকার সব বাড়িওয়ালাকে হুমকি-ধমকি দেয় তারা। মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলার কারণেই আজকে আমার এমন পরিণতি।

শরিফ ছিলেন মুগদা থানাধীন ৭১ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সহ সভাপতি। তখন থেকেই মুগদার দক্ষিণ মান্ডা এলাকায় গড়ে তোলেন বিশাল কিশোর গ্যাং। অলিগলিতে বসান মাদকের হাট। উত্ত্যক্ত করতেন নারীদেরও।

মুগদা এলাকার একজন নারী জানান, রাস্তায় কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের আড্ডা থামাতে বললে কিংবা নিষেধ করে আরও বেশি করে আড্ডা দেয়।

মাদক সেবন এবং বিক্রির অভিযোগে শরিফকে বহিস্কারও করে ছাত্রলীগ। তবে থেমে যায়নি তার মাদকের কারবার। এ ঘটনার পরপরই তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ডিএমপি’র মুগদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তারিকুজ্জামান বলেছেন, এলাকাবাসী যদি পুলিশকে আগেই জানাতো, তাহলে আরও আগেই ব্যবস্থা নেয়া যেত। কেউ যদি অভিযোগ দেয়, তাৎক্ষণিক আমরা যাই এবং বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখি।

তবে শুধু শরিফ নয়, এই কিশোর গ্যাংয়ের বাকি সদস্যদেরও গ্রেফতারের দাবি এলাকাবাসীর।

কালের চিঠি / আলিফ