শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্ত্রীর সাথে অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে স্বামীর আত্মহত্যা

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলায় নজরুল ইসলাম (৩৫) নামের এব রিকশাভ্যান চালক গলায় ফাঁস দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সংসার ছেড়ে স্ত্রী বাবার বাড়িতে যাওয়ার অভিমানে নজরুল ইসলাম আত্নহত্যা করেছে বলে জানান স্থানীয়রা।

রোববার (১৭ মার্চ) বিকেলের দিকে উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের হামিন্দপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নজরুল ইসলাম ওই গ্রামের মৃত আঙ্গুর মিয়ার ছেলে।

 

স্বজনরা জানায়, নজরুল ইসলাম পেশায় একজন রিকশাভ্যান চালক ছিলেন। এই গাড়ির ভাড়ায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে কোনমতে জীবিকা নির্বাহ করতেন। সংসারে নানা অভাব-অনটনের কারণে প্রায় দুই মাস আগে স্ত্রী বিজলী বেগম তার দুই মেয়ে নিয়ে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন। এ নিয়ে মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন নজরুল ইসলাম। এরই অভিমানে রোববার বিকেলের দিকে সবার অজান্তে বাড়ির ঘরের আড়ার (ধর্ণা) সঙ্গে গলায় রশি পেচিয়ে নজুরুল ইসলাম আত্নহত্যা করেছে।

 

এ বিষয়ে জামালপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য সাইদুল ইসলাম জাগো২৪.নেট-কে বলেন, নজরুল ইসলাম মাদকাসক্ত ছিলেন। এ নিয়ে ঝগড়া-বিবাদ করে সংসার ছেড়ে তার স্ত্রীর বাবার বাড়িতে আছেন। আর এই অভিমানে নজরুল ইসলাম আত্নহত্যা করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

সাদুল্লাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিরুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ব্যাপারটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Tag :

স্ত্রীর সাথে অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে স্বামীর আত্মহত্যা

Update Time : ০২:৪২:৪৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলায় নজরুল ইসলাম (৩৫) নামের এব রিকশাভ্যান চালক গলায় ফাঁস দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সংসার ছেড়ে স্ত্রী বাবার বাড়িতে যাওয়ার অভিমানে নজরুল ইসলাম আত্নহত্যা করেছে বলে জানান স্থানীয়রা।

রোববার (১৭ মার্চ) বিকেলের দিকে উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের হামিন্দপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নজরুল ইসলাম ওই গ্রামের মৃত আঙ্গুর মিয়ার ছেলে।

 

স্বজনরা জানায়, নজরুল ইসলাম পেশায় একজন রিকশাভ্যান চালক ছিলেন। এই গাড়ির ভাড়ায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে কোনমতে জীবিকা নির্বাহ করতেন। সংসারে নানা অভাব-অনটনের কারণে প্রায় দুই মাস আগে স্ত্রী বিজলী বেগম তার দুই মেয়ে নিয়ে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন। এ নিয়ে মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন নজরুল ইসলাম। এরই অভিমানে রোববার বিকেলের দিকে সবার অজান্তে বাড়ির ঘরের আড়ার (ধর্ণা) সঙ্গে গলায় রশি পেচিয়ে নজুরুল ইসলাম আত্নহত্যা করেছে।

 

এ বিষয়ে জামালপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য সাইদুল ইসলাম জাগো২৪.নেট-কে বলেন, নজরুল ইসলাম মাদকাসক্ত ছিলেন। এ নিয়ে ঝগড়া-বিবাদ করে সংসার ছেড়ে তার স্ত্রীর বাবার বাড়িতে আছেন। আর এই অভিমানে নজরুল ইসলাম আত্নহত্যা করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

সাদুল্লাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিরুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ব্যাপারটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।