শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেসি ম্যাজিকে শেষ আটে মায়ামি

কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়নস কাপের শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে ঘরের মাঠে ন্যাশভিলকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে ইন্টার মায়ামি। ১টি করে গোল ও এসিস্ট করেন আর্জেন্টাইন ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসি। দুই লেগ মিলিয়ে ৫-৩ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে টাটা মার্টিনো শিষ্যরা। মায়ামির হয়ে এদিন মেসি ছাড়াও গোল করেছেন লুইস সুয়ারেজ ও রবার্ট টেইলর।

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) ভোরে নিজের মাঠ চেজ স্টেডিয়ামে ন্যাশভিলকে আতিথ্য জানায় ইন্টার মায়ামি। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণে এগিয়ে ছিল মায়ামি। যার ফল পেতে খুব একটা সময় লাগেনি। ম্যাচের ৮ মিনিটে মায়ামির প্রথম গোলটি আসে সুয়ারেজের কাছ থেকে। ন্যাশভিলের ডিফেন্ডারদের বোকা বানিয়ে বক্সের মধ্যে সুয়ারেজকে দারুণ এক পাস দেন মেসি। এরপর সুয়ারেজ গোলের কাজটা সারেন।

ম্যাচের ২৩তম মিনিটে বাঁ প্রান্ত দিয়ে গোমেজের বাড়ানো বলে দুর্দান্ত এক গোল করেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা মেসি। এলএমটেনের এই গোলে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় মায়ামি। এরপর প্রথমার্ধের বাকি সময়ে আরও বেশকটি আক্রমণ করলেও তা গোলের জন্য যথেষ্ট ছিল না। ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় মায়ামি।

দ্বিতীয়ার্ধের ৫০তম মিনিটে মেসিকে উঠিয়ে নেন মায়ামি কোচ মার্টিনো। ৬৩ মিনিটে আবার দেখা যায় সুয়ারেজের ঝলক। তার নিখুঁত ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে এ দফায় বল জালে জড়ান মেসির বদলী নামা রবার্ট টেইলর। তাতেই জয় নিশ্চিত হয়ে যায় মায়ামির। ফিরে আসার চেষ্টা করেও বারবার ব্যর্থ হন ন্যাশভিলের খেলোয়াড়রা। ৮৩তম মিনিটে মায়ামির জালে বল পাঠালেও ভিএআরে বাতিল হয় ন্যাশভিলের গোল।

তবে চেজ স্টেডিয়াম থেকে স্বান্তনাসূচক একটি গোলের দেখা পায় ন্যাশভিল ম্যাচের যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিটে। শ্যাক মুরের ক্রস থেকে মায়ামির জালে বল পাঠান স্যাম সারিজ। প্রথমবারের মতো কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়নস কাপে খেলছে মায়ামি। গত মৌসুমে মেসির কল্যাণেই এই টুর্নামেন্টে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ক্লাবটি। মায়ামি লিগস কাপ জেতায় এ মৌসুমে সরাসরি কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়নস কাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলছে। ২৭ দলের এ টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়নরা খেলবে ২০২৫ সালের ক্লাব বিশ্বকাপে।

উল্লেখ্য, গত মৌসুমে মায়ামির কাছে লিগস কাপের ফাইনালে হারার পর এবার চ্যাম্পিয়নস কাপের কোয়ার্টারেও মেসিদের কাছে হেরে বিদায় নিতে

কালের চিঠি / আলিফ

Tag :

মেসি ম্যাজিকে শেষ আটে মায়ামি

Update Time : ০৪:৫৬:৫৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০২৪

কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়নস কাপের শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে ঘরের মাঠে ন্যাশভিলকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে ইন্টার মায়ামি। ১টি করে গোল ও এসিস্ট করেন আর্জেন্টাইন ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসি। দুই লেগ মিলিয়ে ৫-৩ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে টাটা মার্টিনো শিষ্যরা। মায়ামির হয়ে এদিন মেসি ছাড়াও গোল করেছেন লুইস সুয়ারেজ ও রবার্ট টেইলর।

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) ভোরে নিজের মাঠ চেজ স্টেডিয়ামে ন্যাশভিলকে আতিথ্য জানায় ইন্টার মায়ামি। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণে এগিয়ে ছিল মায়ামি। যার ফল পেতে খুব একটা সময় লাগেনি। ম্যাচের ৮ মিনিটে মায়ামির প্রথম গোলটি আসে সুয়ারেজের কাছ থেকে। ন্যাশভিলের ডিফেন্ডারদের বোকা বানিয়ে বক্সের মধ্যে সুয়ারেজকে দারুণ এক পাস দেন মেসি। এরপর সুয়ারেজ গোলের কাজটা সারেন।

ম্যাচের ২৩তম মিনিটে বাঁ প্রান্ত দিয়ে গোমেজের বাড়ানো বলে দুর্দান্ত এক গোল করেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা মেসি। এলএমটেনের এই গোলে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় মায়ামি। এরপর প্রথমার্ধের বাকি সময়ে আরও বেশকটি আক্রমণ করলেও তা গোলের জন্য যথেষ্ট ছিল না। ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় মায়ামি।

দ্বিতীয়ার্ধের ৫০তম মিনিটে মেসিকে উঠিয়ে নেন মায়ামি কোচ মার্টিনো। ৬৩ মিনিটে আবার দেখা যায় সুয়ারেজের ঝলক। তার নিখুঁত ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে এ দফায় বল জালে জড়ান মেসির বদলী নামা রবার্ট টেইলর। তাতেই জয় নিশ্চিত হয়ে যায় মায়ামির। ফিরে আসার চেষ্টা করেও বারবার ব্যর্থ হন ন্যাশভিলের খেলোয়াড়রা। ৮৩তম মিনিটে মায়ামির জালে বল পাঠালেও ভিএআরে বাতিল হয় ন্যাশভিলের গোল।

তবে চেজ স্টেডিয়াম থেকে স্বান্তনাসূচক একটি গোলের দেখা পায় ন্যাশভিল ম্যাচের যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিটে। শ্যাক মুরের ক্রস থেকে মায়ামির জালে বল পাঠান স্যাম সারিজ। প্রথমবারের মতো কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়নস কাপে খেলছে মায়ামি। গত মৌসুমে মেসির কল্যাণেই এই টুর্নামেন্টে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ক্লাবটি। মায়ামি লিগস কাপ জেতায় এ মৌসুমে সরাসরি কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়নস কাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলছে। ২৭ দলের এ টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়নরা খেলবে ২০২৫ সালের ক্লাব বিশ্বকাপে।

উল্লেখ্য, গত মৌসুমে মায়ামির কাছে লিগস কাপের ফাইনালে হারার পর এবার চ্যাম্পিয়নস কাপের কোয়ার্টারেও মেসিদের কাছে হেরে বিদায় নিতে

কালের চিঠি / আলিফ