শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শ্রম আইনে বড় পরিবর্তন আনছে সরকার

জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার ৩৫০ তম গভর্নিং বডি অধিবেশনে আইনমন্ত্রী।

দেশের শ্রম আইনে বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে সরকার। জাতীয় সংসদের পরবর্তী অধিবেশনে আইনের সংশোধনীর খসড়াটি উপস্থাপন করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

মঙ্গলবার (১২ মার্চ) জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার ৩৫০ তম গভর্নিং বডি অধিবেশনে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। জেনেভায় বাংলাদেশ দূতাবাস এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

আইনমন্ত্রী বলেছেন, প্রস্তাবিত শ্রম আইন সংশোধন বিলে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধনের জন্য শিল্প খাতে প্রয়োজনীয় শ্রমিক সংখ্যা ২০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে আনা, ইউনিয়নের প্রতি অনায্য আচরণের শাস্তি দ্বিগুণ করা, বেআইনিভাবে কারখানা বন্ধ করার শাস্তি তিনগুণ করা, শিশুশ্রমের শাস্তি চারগুণ করার বিধান রাখার কথা বলা আছে।

তিনি বলেন, প্রস্তাবিত এ সংশোধনীটিতে বেসামরিক বিমান পরিবহন খাতে এবং নৌ পরিবহন খাতে ট্রেড ইউনিয়ন গঠন ও পরিচালনা সহজীকরণ, শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের রায়ে আপিল আবেদন সহজ করার বিধান সংযুক্ত করার কথাও বলা আছে।

প্রচলিত আবেদন প্রক্রিয়ার পাশাপাশি অনলাইন ভিত্তিক ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন চালু করা, প্রাক-আবেদন সেবা চালুকরণ, প্রশিক্ষণ কার্যক্রম গ্রহণের ফলে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধনের ক্ষেত্রে গুণগত ও পরিমাণগত অগ্রগতি সাধিত হয়েছে বলে মন্ত্রী জানান।

আইনমন্ত্রী বলেন, এর ফলে গত নয় বছরে তৈরি পোশাক খাতে গত নিবন্ধন নয়গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে প্রায় ত্রিশ লক্ষ শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নভুক্ত। তাছাড়া, ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন ভুক্তি আবেদনের সফলতার হার গত চার বছরে ৬০ শতাংশ থেকে ৯০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবন ও জীবিকার উন্নয়নে সরকার কর্তৃক গৃহীত রোড ম্যাপ (২০২১-২০২৬) এর আলোকে আইনগত সংস্কার, ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন ও শ্রমিকদের অন্যান্য অধিকার রক্ষার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অগ্রগতি তুলে ধরেন আইনমন্ত্রী।

আই এলও গভর্নিং বডির সদস্যরা রোডম্যাপের দ্রুত বাস্তবায়নের সঙ্গে সঙ্গে সুপারভাইজরী বডিগুলোর সংশ্লিষ্টতায় সংস্থাটির কারিগরি সহায়তা বজায় রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

পরে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার মহাপরিচালক গিলবার্ট হোংবোর সঙ্গে এক দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হন। শ্রম প্রতিমন্ত্রী মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, জেনেভায় বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি, শ্রম সচিব ছাড়াও আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন।

কালের চিঠি/শর্মিলী

Tag :

বালু ব্যবসায়ীর মিথ্যা মামলায় সাংবাদিক কারাগারে

শ্রম আইনে বড় পরিবর্তন আনছে সরকার

Update Time : ০২:৩৬:১৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৩ মার্চ ২০২৪

জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার ৩৫০ তম গভর্নিং বডি অধিবেশনে আইনমন্ত্রী।

দেশের শ্রম আইনে বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে সরকার। জাতীয় সংসদের পরবর্তী অধিবেশনে আইনের সংশোধনীর খসড়াটি উপস্থাপন করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

মঙ্গলবার (১২ মার্চ) জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার ৩৫০ তম গভর্নিং বডি অধিবেশনে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। জেনেভায় বাংলাদেশ দূতাবাস এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

আইনমন্ত্রী বলেছেন, প্রস্তাবিত শ্রম আইন সংশোধন বিলে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধনের জন্য শিল্প খাতে প্রয়োজনীয় শ্রমিক সংখ্যা ২০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে আনা, ইউনিয়নের প্রতি অনায্য আচরণের শাস্তি দ্বিগুণ করা, বেআইনিভাবে কারখানা বন্ধ করার শাস্তি তিনগুণ করা, শিশুশ্রমের শাস্তি চারগুণ করার বিধান রাখার কথা বলা আছে।

তিনি বলেন, প্রস্তাবিত এ সংশোধনীটিতে বেসামরিক বিমান পরিবহন খাতে এবং নৌ পরিবহন খাতে ট্রেড ইউনিয়ন গঠন ও পরিচালনা সহজীকরণ, শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের রায়ে আপিল আবেদন সহজ করার বিধান সংযুক্ত করার কথাও বলা আছে।

প্রচলিত আবেদন প্রক্রিয়ার পাশাপাশি অনলাইন ভিত্তিক ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন চালু করা, প্রাক-আবেদন সেবা চালুকরণ, প্রশিক্ষণ কার্যক্রম গ্রহণের ফলে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধনের ক্ষেত্রে গুণগত ও পরিমাণগত অগ্রগতি সাধিত হয়েছে বলে মন্ত্রী জানান।

আইনমন্ত্রী বলেন, এর ফলে গত নয় বছরে তৈরি পোশাক খাতে গত নিবন্ধন নয়গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে প্রায় ত্রিশ লক্ষ শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নভুক্ত। তাছাড়া, ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন ভুক্তি আবেদনের সফলতার হার গত চার বছরে ৬০ শতাংশ থেকে ৯০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবন ও জীবিকার উন্নয়নে সরকার কর্তৃক গৃহীত রোড ম্যাপ (২০২১-২০২৬) এর আলোকে আইনগত সংস্কার, ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন ও শ্রমিকদের অন্যান্য অধিকার রক্ষার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অগ্রগতি তুলে ধরেন আইনমন্ত্রী।

আই এলও গভর্নিং বডির সদস্যরা রোডম্যাপের দ্রুত বাস্তবায়নের সঙ্গে সঙ্গে সুপারভাইজরী বডিগুলোর সংশ্লিষ্টতায় সংস্থাটির কারিগরি সহায়তা বজায় রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

পরে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার মহাপরিচালক গিলবার্ট হোংবোর সঙ্গে এক দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হন। শ্রম প্রতিমন্ত্রী মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, জেনেভায় বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি, শ্রম সচিব ছাড়াও আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন।

কালের চিঠি/শর্মিলী