মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাগেরহাটে অগ্নিকান্ডে মশার কয়েল কারখানা পুড়ে ছাই

বাগেরহাটে অগ্নিকান্ডে মশার কয়েল কারখানা পুড়ে ছাই

বাগেরহাট শহরের দড়াটানা সেতু সংলগ্ন নারকেলের আচা দিয়ে মশার কয়েল তৈরির কারখানায় অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (৬ মার্চ) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। আগুনে কারখানাটি সম্পূর্ন পুড়ে গেলেও কর্মরত ২৫ শ্রমিক সবাই নিরাপদ রয়েছে।

বিদ্যুতের সর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করছে ফায়ার সার্ভিস।

বাগেরহাট ফায়ার সাভিসের সিনিয়র ষ্টেশন অফিসার মোঃ সাহাবুদ্দিন জানান, শহরের দড়াটানা ব্রিজ এলাকায় নারকেলের আচা গুড়া করা কারখানায় আগুনের খবর শুনে আমাদের দুটি ইউনিট তড়িৎ গতিতে আগুন নিয়ন্ত্রের কাজ শুরু করে। প্রায় আধ ঘন্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হই।

প্রাথমিকভাবে ধারনা করছি বিদ্যুতের সর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। তবে এই ঘটনায় কেই হতাহত হয়নি।

কারখানার মালিক আলআমিন হোসেন বলেন, দুপুরে শ্রমিকরা টিফিনে গেলে আগুন দেখে স্থানীয় লোকজন ডাক চিৎকার শুরু করে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস এর লোকজন এসে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। ততক্ষনে কারখানাটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

কালের চিঠি/শর্মিলী

Tag :

বাগেরহাটে অগ্নিকান্ডে মশার কয়েল কারখানা পুড়ে ছাই

Update Time : ১১:০৩:৩০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৬ মার্চ ২০২৪

বাগেরহাটে অগ্নিকান্ডে মশার কয়েল কারখানা পুড়ে ছাই

বাগেরহাট শহরের দড়াটানা সেতু সংলগ্ন নারকেলের আচা দিয়ে মশার কয়েল তৈরির কারখানায় অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (৬ মার্চ) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। আগুনে কারখানাটি সম্পূর্ন পুড়ে গেলেও কর্মরত ২৫ শ্রমিক সবাই নিরাপদ রয়েছে।

বিদ্যুতের সর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করছে ফায়ার সার্ভিস।

বাগেরহাট ফায়ার সাভিসের সিনিয়র ষ্টেশন অফিসার মোঃ সাহাবুদ্দিন জানান, শহরের দড়াটানা ব্রিজ এলাকায় নারকেলের আচা গুড়া করা কারখানায় আগুনের খবর শুনে আমাদের দুটি ইউনিট তড়িৎ গতিতে আগুন নিয়ন্ত্রের কাজ শুরু করে। প্রায় আধ ঘন্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হই।

প্রাথমিকভাবে ধারনা করছি বিদ্যুতের সর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। তবে এই ঘটনায় কেই হতাহত হয়নি।

কারখানার মালিক আলআমিন হোসেন বলেন, দুপুরে শ্রমিকরা টিফিনে গেলে আগুন দেখে স্থানীয় লোকজন ডাক চিৎকার শুরু করে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস এর লোকজন এসে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। ততক্ষনে কারখানাটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

কালের চিঠি/শর্মিলী