মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ৩রানে হারলো বাংলাদেশ

 

তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে ৩ রানে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা। আগে ব্যাট করতে নেমে কুশল মেন্ডিস ও সাদেরা সামারাবিক্রমার জোড়া অর্ধশতকের পর শেষ দিকে চারিথ আসালঙ্কার ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ৩ উইকেট হারিয়ে ২০৬ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় শ্রীলঙ্কা। লক্ষ্য তাড়ায় নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে বাংলাদেশ। তবে মাহমুদউল্লাহ অর্ধশতকের পর তরুণ সেনসেশান জাকের আলী অনিকের ঝড়ো ৬৮ রানেও হার এড়াতে পারেনি স্বাগতিকরা। শেষ পর্যন্ত ২০৩ রানে থামে টাইগাররা।

সোমবার (৫ মার্চ) সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম ওভারেই উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই আভিস্কা ফার্নান্দোকে প্যাভিলিয়নে ফেরান শরিফুল ইসলাম। তার অফ সাইডের বল কাভার অঞ্চলে ড্রাইভ করতে গিয়ে উইকেটরক্ষক লিটন দাসের তালুবন্দি হন ৪ রান করা লঙ্কান এই ওপেনার।

পঞ্চম ওভারে বাংলাদেশকে আবারও ব্রেক’থ্রু এনে দেন তাসকিন আহমেদ। তার অফসাইডের বাইরে করা বলটিকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মিড উইকেটে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ তুলে দেন কামিন্দু মেন্ডিস। তার বলে আসে ১৪ বলে ১৯ রানের ইনিংস। ৩৭ রানে দুই উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়ে লঙ্কানরা। তবে ৩য় উইকেট জুটিতে কুশল মেন্ডিস এবং সাদিরা সামাবিক্রমা বিপর্যয় সামাল দেন।

এই জুটি গড়ার পথে হাফ সেঞ্চুরি করেন মেন্ডিস। তাদের ৯৬ রানের জুটি ভাঙেন রিশাদ হোসেন। তাকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে লং অফে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নিয়ন্ত্রিত ক্যাচে মাঠ ছাড়েন মেন্ডিস। ৩৬ বলে ছয়টি চার ও তিনটি ছক্কার সাহায্যে ৫৯ রান করেন এই ওপেনার। এরপর সাদিরা সামারাবিক্রমা এবং ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক চারিথ আসালাঙ্কার ব্যাটে এগিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের বোলারদের তুলোধুনো করে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন সামাবিক্রমাও। এই জুটিতে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি।

শেষ পর্যন্ত ৪৮ বলে ৬১ রানে অপরাজিত ছিলেন সামারাবিক্রমা। টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে এটাই তার সর্বোচ্চ রান। আরেকপ্রান্তে ২১ বলে ছয়টি ছক্কায় ৪৪ রানে অপরাজিত ছিলেন আসালাঙ্কা। বাংলাদেশের হয়ে ১টি করে উইকেট নেন শরিফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও রিশাদ হোসাইন।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের করা প্রথম ওভারেই ফিরে যান লিটন দাস। ইনিংসের তৃতীয় বলে উইকেটের পেছনে কুশল মেন্ডিসকে ক্যাচ দিয়ে শূন্য রানেই ফেরেন এই ওপেনার। চতুর্থ ওভারে ফিরে যান সৌম্য সরকারও। বিনুরা ফার্নান্দোর করা বলে মিড অফে উড়িয়ে মারতে গিয়ে চারিথ আসালাঙ্কার তালুবন্দি হন সৌম্য। ফেরার আগে করেন ১১ বলে ১২ রান। ৩০ রানের মধ্যে নিজেদের তৃতীয় উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ছক্কা মেরে ইনিংস শুরু করা তাওহিদ হৃদয়ও ম্যাথিউসের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান। তার ব্যাটে আসে ৫ বলে ৮ রান।

নবম ওভারে ফিরে যান নাজমুল হোসেন শান্তও। বাংলাদেশের অধিনায়ক ২২ বলে ২০ রান করে মাথিশা পাথিরানার বলে ফিরে যান। স্কয়ার লেগে শান্তর ক্যাচটিও ধরেন ম্যাথিউস।বাংলাদেশের রান তাড়ার মিশনটি ভালোভাবে শুরু হয় ৬৮ রানে চার উইকেট যাওয়ার পর। তাণ্ডবের শুরুটা করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। জাকের আলী অনিকের সঙ্গে জুটি গড়েন ৪৭ রানের। এই জুটিতে মাত্র ২৭ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেন মাহমুদউল্লাহ। যদিও আগ্রাসী ভঙ্গিমায় খেলতে খেলতে মাহিশ থিকশানার বলে ফিরে যান তিনি।

৩১ বলে দু’টি চার ও চারটি ছক্কায় ৫৪ আসে তার ব্যাটে। লং অনে ক্যাচ দিয়ে মাহমুদউল্লাহ ফেরার পর বাংলাদেশের হাল ধরেন জাকের। শেখ মেহেদীর সঙ্গে চটজলদি ৬৫ রানের জুটি গড়েন তিনি। এই জুটিতে অবশ্য জাকেরের অবদানই বেশি। তবে দলীয় ১৮০ রানে ফিরে যাওয়ার আগে মেহেদীর ১১ বলে ১৬ রানের ইনিংসটিও বাংলাদেশকে প্রেরণা দেয়। শেষ ওভারে ফিরে যাওয়ার আগে ৩৪ বলে চারটি চার ও ছয়টি ছক্কায় ৬৮ রান করেন জাকের। তবে এই ইনিংসও জিততে পারেনি বাংলাদেশ।

কালের চিঠি/ ফাহিম

Tag :

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ৩রানে হারলো বাংলাদেশ

Update Time : ০৪:১৫:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ৪ মার্চ ২০২৪

 

তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে ৩ রানে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা। আগে ব্যাট করতে নেমে কুশল মেন্ডিস ও সাদেরা সামারাবিক্রমার জোড়া অর্ধশতকের পর শেষ দিকে চারিথ আসালঙ্কার ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ৩ উইকেট হারিয়ে ২০৬ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় শ্রীলঙ্কা। লক্ষ্য তাড়ায় নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে বাংলাদেশ। তবে মাহমুদউল্লাহ অর্ধশতকের পর তরুণ সেনসেশান জাকের আলী অনিকের ঝড়ো ৬৮ রানেও হার এড়াতে পারেনি স্বাগতিকরা। শেষ পর্যন্ত ২০৩ রানে থামে টাইগাররা।

সোমবার (৫ মার্চ) সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম ওভারেই উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই আভিস্কা ফার্নান্দোকে প্যাভিলিয়নে ফেরান শরিফুল ইসলাম। তার অফ সাইডের বল কাভার অঞ্চলে ড্রাইভ করতে গিয়ে উইকেটরক্ষক লিটন দাসের তালুবন্দি হন ৪ রান করা লঙ্কান এই ওপেনার।

পঞ্চম ওভারে বাংলাদেশকে আবারও ব্রেক’থ্রু এনে দেন তাসকিন আহমেদ। তার অফসাইডের বাইরে করা বলটিকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মিড উইকেটে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ তুলে দেন কামিন্দু মেন্ডিস। তার বলে আসে ১৪ বলে ১৯ রানের ইনিংস। ৩৭ রানে দুই উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়ে লঙ্কানরা। তবে ৩য় উইকেট জুটিতে কুশল মেন্ডিস এবং সাদিরা সামাবিক্রমা বিপর্যয় সামাল দেন।

এই জুটি গড়ার পথে হাফ সেঞ্চুরি করেন মেন্ডিস। তাদের ৯৬ রানের জুটি ভাঙেন রিশাদ হোসেন। তাকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে লং অফে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নিয়ন্ত্রিত ক্যাচে মাঠ ছাড়েন মেন্ডিস। ৩৬ বলে ছয়টি চার ও তিনটি ছক্কার সাহায্যে ৫৯ রান করেন এই ওপেনার। এরপর সাদিরা সামারাবিক্রমা এবং ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক চারিথ আসালাঙ্কার ব্যাটে এগিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের বোলারদের তুলোধুনো করে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন সামাবিক্রমাও। এই জুটিতে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি।

শেষ পর্যন্ত ৪৮ বলে ৬১ রানে অপরাজিত ছিলেন সামারাবিক্রমা। টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে এটাই তার সর্বোচ্চ রান। আরেকপ্রান্তে ২১ বলে ছয়টি ছক্কায় ৪৪ রানে অপরাজিত ছিলেন আসালাঙ্কা। বাংলাদেশের হয়ে ১টি করে উইকেট নেন শরিফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও রিশাদ হোসাইন।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের করা প্রথম ওভারেই ফিরে যান লিটন দাস। ইনিংসের তৃতীয় বলে উইকেটের পেছনে কুশল মেন্ডিসকে ক্যাচ দিয়ে শূন্য রানেই ফেরেন এই ওপেনার। চতুর্থ ওভারে ফিরে যান সৌম্য সরকারও। বিনুরা ফার্নান্দোর করা বলে মিড অফে উড়িয়ে মারতে গিয়ে চারিথ আসালাঙ্কার তালুবন্দি হন সৌম্য। ফেরার আগে করেন ১১ বলে ১২ রান। ৩০ রানের মধ্যে নিজেদের তৃতীয় উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ছক্কা মেরে ইনিংস শুরু করা তাওহিদ হৃদয়ও ম্যাথিউসের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান। তার ব্যাটে আসে ৫ বলে ৮ রান।

নবম ওভারে ফিরে যান নাজমুল হোসেন শান্তও। বাংলাদেশের অধিনায়ক ২২ বলে ২০ রান করে মাথিশা পাথিরানার বলে ফিরে যান। স্কয়ার লেগে শান্তর ক্যাচটিও ধরেন ম্যাথিউস।বাংলাদেশের রান তাড়ার মিশনটি ভালোভাবে শুরু হয় ৬৮ রানে চার উইকেট যাওয়ার পর। তাণ্ডবের শুরুটা করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। জাকের আলী অনিকের সঙ্গে জুটি গড়েন ৪৭ রানের। এই জুটিতে মাত্র ২৭ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেন মাহমুদউল্লাহ। যদিও আগ্রাসী ভঙ্গিমায় খেলতে খেলতে মাহিশ থিকশানার বলে ফিরে যান তিনি।

৩১ বলে দু’টি চার ও চারটি ছক্কায় ৫৪ আসে তার ব্যাটে। লং অনে ক্যাচ দিয়ে মাহমুদউল্লাহ ফেরার পর বাংলাদেশের হাল ধরেন জাকের। শেখ মেহেদীর সঙ্গে চটজলদি ৬৫ রানের জুটি গড়েন তিনি। এই জুটিতে অবশ্য জাকেরের অবদানই বেশি। তবে দলীয় ১৮০ রানে ফিরে যাওয়ার আগে মেহেদীর ১১ বলে ১৬ রানের ইনিংসটিও বাংলাদেশকে প্রেরণা দেয়। শেষ ওভারে ফিরে যাওয়ার আগে ৩৪ বলে চারটি চার ও ছয়টি ছক্কায় ৬৮ রান করেন জাকের। তবে এই ইনিংসও জিততে পারেনি বাংলাদেশ।

কালের চিঠি/ ফাহিম