রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বেইলি রোডের আগুনে অন্তত ৪৪ জনের মৃত্যু, আশঙ্কাজনক ২২।

রাজধানীর বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে লাগা আগুনে নারী-শিশুসহ ৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। এছাড়া অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আহত ২২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাত দেড়টার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে হতাহতদের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের পর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি।

এর আগে বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে লাগা আগুন ১৩ ইউনিটের চেষ্টায় রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে নিয়ন্ত্রণে আসে। রাত সোয়া ১টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে এক ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, এ ঘটনায় ৭৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। সে সময় তিনজনের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছিল ফায়ার সার্ভিস।

এদিকে, ঘটনাস্থলে উপস্থিত ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার (ডিএমপি) হাবিবুর রহমান রাত ১টার পর সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ভবনটির দোতলায় মূলত আগুন লাগে। ভবনটি নিরাপদ ছিল না, সেখানে অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র ছিল না। সাত তলা বিশিষ্ট ভবনটির উপরে চিলেকোঠা ছিল।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে রেস্টুরেন্টটিতে এ অগ্নিকাণ্ড ঘটে। পরে ৯টা ৫৬ মিনিটের দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ফায়ার সার্ভিসের প্রথম ইউনিট। পরবর্তীতে ইউনিট বাড়ার পাশাপাশি আগুন নিয়ন্ত্রণে ৩ প্লাটুন সাধারণ আনসার ছাড়াও বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ১ প্লাটুন আনসার গার্ড ব্যাটালিয়ন (এজিবি) সদস্য মোতায়েন করা হয়।

তারা ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে আগুন নিয়ন্ত্রণ ও আটকে পড়া ব্যক্তিদের উদ্ধার করতে কাজ করে। এছাড়াও উদ্ধার কার্যক্রমে যোগ দেয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরাও।

কালের চিঠি/শর্মিলী

Tag :

বেইলি রোডের আগুনে অন্তত ৪৪ জনের মৃত্যু, আশঙ্কাজনক ২২।

Update Time : ১২:৩১:৩২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪

রাজধানীর বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে লাগা আগুনে নারী-শিশুসহ ৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। এছাড়া অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আহত ২২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাত দেড়টার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে হতাহতদের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের পর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি।

এর আগে বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে লাগা আগুন ১৩ ইউনিটের চেষ্টায় রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে নিয়ন্ত্রণে আসে। রাত সোয়া ১টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে এক ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, এ ঘটনায় ৭৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। সে সময় তিনজনের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছিল ফায়ার সার্ভিস।

এদিকে, ঘটনাস্থলে উপস্থিত ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার (ডিএমপি) হাবিবুর রহমান রাত ১টার পর সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ভবনটির দোতলায় মূলত আগুন লাগে। ভবনটি নিরাপদ ছিল না, সেখানে অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র ছিল না। সাত তলা বিশিষ্ট ভবনটির উপরে চিলেকোঠা ছিল।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে রেস্টুরেন্টটিতে এ অগ্নিকাণ্ড ঘটে। পরে ৯টা ৫৬ মিনিটের দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ফায়ার সার্ভিসের প্রথম ইউনিট। পরবর্তীতে ইউনিট বাড়ার পাশাপাশি আগুন নিয়ন্ত্রণে ৩ প্লাটুন সাধারণ আনসার ছাড়াও বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ১ প্লাটুন আনসার গার্ড ব্যাটালিয়ন (এজিবি) সদস্য মোতায়েন করা হয়।

তারা ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে আগুন নিয়ন্ত্রণ ও আটকে পড়া ব্যক্তিদের উদ্ধার করতে কাজ করে। এছাড়াও উদ্ধার কার্যক্রমে যোগ দেয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরাও।

কালের চিঠি/শর্মিলী