সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশে মেডিকেল যন্ত্রপাতি তৈরির উদ্যোগ নিতে বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, আমরা দেশে অনেক ওষুধ তৈরি করি কিন্তু মেডিকেল ডিভাইস দেশে তৈরি হয় না। এসব যন্ত্রপাতি দেশে তৈরি করতে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য আমি উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আজ (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীতে ১৫তম এশিয়া ফার্মা এক্সপো ও এশিয়া ল্যাব এক্সপো ২০২৪ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, হার্টের অপারেশন করতে বা রিং বসাতে স্টেন্টিং দরকার হয়। প্লাস্টিক সার্জারির ক্ষেত্রে টিস্যু দরকার হয়। যা দেশের বাইরে থেকে আনলে অনেক দাম পড়ে। দেশে মেডিকেল ডিভাইস তৈরি করলে তা সাধারণ মানুষের কাছে সহজলভ্য হবে। একটা রিং পরানো বা ভালব রিপ্লেসমেন্টে অনেক টাকার প্রয়োজন হয়। দেশে মেডিকেল ডিভাইস উৎপাদনের ক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে সকল ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

এ সময় তিনি ওষুধের দাম কমানো জন্য বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতির প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ডায়াবেটিস ও হার্টের ওষুধের দাম কমালে সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন আরও বলেন, আমি বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হবো, কোনদিন স্বপ্নেও ভাবিনি। আমি তৃণমূল থেকে কাজ করে আজ এই পর্যায়ে এসেছি। স্বাস্থ্য খাতের উন্নতির জন্য সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। তাহলে সাধারণ মানুষকে সহজলভ্য চিকিৎসা সেবা দেওয়া যাবে। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা সুন্দর ও সহজলভ্য হলে সাধারণ মানুষের দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ওপর আস্থা ফিরে আসবে।

কালের চিঠি/ ফাহিম

Tag :

দেশে মেডিকেল যন্ত্রপাতি তৈরির উদ্যোগ নিতে বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ।

Update Time : ০২:২৭:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, আমরা দেশে অনেক ওষুধ তৈরি করি কিন্তু মেডিকেল ডিভাইস দেশে তৈরি হয় না। এসব যন্ত্রপাতি দেশে তৈরি করতে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য আমি উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আজ (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীতে ১৫তম এশিয়া ফার্মা এক্সপো ও এশিয়া ল্যাব এক্সপো ২০২৪ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, হার্টের অপারেশন করতে বা রিং বসাতে স্টেন্টিং দরকার হয়। প্লাস্টিক সার্জারির ক্ষেত্রে টিস্যু দরকার হয়। যা দেশের বাইরে থেকে আনলে অনেক দাম পড়ে। দেশে মেডিকেল ডিভাইস তৈরি করলে তা সাধারণ মানুষের কাছে সহজলভ্য হবে। একটা রিং পরানো বা ভালব রিপ্লেসমেন্টে অনেক টাকার প্রয়োজন হয়। দেশে মেডিকেল ডিভাইস উৎপাদনের ক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে সকল ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

এ সময় তিনি ওষুধের দাম কমানো জন্য বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতির প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ডায়াবেটিস ও হার্টের ওষুধের দাম কমালে সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন আরও বলেন, আমি বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হবো, কোনদিন স্বপ্নেও ভাবিনি। আমি তৃণমূল থেকে কাজ করে আজ এই পর্যায়ে এসেছি। স্বাস্থ্য খাতের উন্নতির জন্য সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। তাহলে সাধারণ মানুষকে সহজলভ্য চিকিৎসা সেবা দেওয়া যাবে। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা সুন্দর ও সহজলভ্য হলে সাধারণ মানুষের দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ওপর আস্থা ফিরে আসবে।

কালের চিঠি/ ফাহিম