মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের জমকালো আয়োজনে নবীন বরণ 

 

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ২০২১-২০২২ সেশন (উচ্ছ্বাসে-৪৮) এর শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ২০২২-২০২৩ সেশনের (প্রাতিস্বিক-৪৯) নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেওয়ার জন্য জমকালো আয়োজনে আয়োজন করা হয়েছে নবীন বরণ অনুষ্ঠান।

 

বিশ্ববিদ্যালয় বোটানিক্যাল গার্ডেনে ৪৮ ব্যাচের শিক্ষার্থী মো. ফুয়াদ মন্ডল ও নিশাত শাওরিনের সঞ্চালনায় সকাল ১১টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চলে এই জমকালো আয়োজনের নবীন বরণ অনুষ্ঠান।

 

নবীন বরণ অনুষ্ঠানে নবীনদের বরণ করে নেওয়া, দুপুরের খাবার আয়োজন, ছেলেদের জন্য ক্রিকেট বল নিক্ষেপ মেয়েদের জন্য চেয়ার খেলা, এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

 

অনুষ্ঠানের শুরুতে ২০২১-২০২২ সেশনের (উচ্ছ্বাসে-৪৮) এর পক্ষ থেকে ২০২২-২০২৩ সেশনের (প্রাতিস্বিক-৪৯) নবীনদের শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়।

 

নবীন শিক্ষার্থী মাহফুজ রহমান অনুভুতি প্রকাশ করে বলেন, আপনারা যা আয়োজন করেছেন তা আমাদের জন্য কল্পনাতীত।এত সুন্দর আয়োজন দেখে আমাদের খুব ভালো লাগছে। বাসা থেকে অনেক দূরে থেকেও আমরা আপন একটা পরিবার পেয়েছি। আজীবন যেন আমাদের এই ভাতৃত্বের বন্ধন অটুট থাকে।

 

আরেক নবীন শিক্ষার্থী এস এম অভি তার অনুভুতি ব্যক্ত করে বলেন, অনেককেই দেখতাম তাদের বিভাগের নবীন বরণ নিয়ে বেশি উচ্ছ্বাসিত, এসব দেখে আমাদের অনেক কষ্ট হতো। কিন্তু ধৈর্য ধরার ফল যে এত জাঁকজমক হবে তা বিশ্বাস করতে পারছি না। আমি আমাদের ব্যাচের পক্ষ থেকে ভাইদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এবং ভবিষ্যতেও যেন এমন আয়োজন হয় সেই আশা ব্যক্ত করছি।

 

অনুষ্ঠানে নবীনদের উদ্দেশ্য ৪৮ ব্যাচের পক্ষ থেকে বক্তব্যে ফাতেমা তুজ জোহরা মীম বলেন, বসন্তের মধ্যাহ্নে বরণ করে নিচ্ছি নবীনদের অন্তরের অন্তস্থল থেকে । আমাদের এক সাথে পথ চলা শুরু সবসময় অটুট থাকুক আমাদের এই সিনিয়র -জুনিয়র ভ্রাতৃত্বের বন্ধন । একদিকে সিনিয়রদের ভালোবাসা ও স্নেহ অপরদিকে জুনিয়রদের সম্মান ও আন্তরিকতায় পরিপূর্ণ থাকুক এ ভ্রাতৃত্ব । আমাদের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ঐতিহ্য ধরে রাখার প্রত্যয় রইল।

 

মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন,

নিসন্দেহে চবির ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ একটি সমৃদ্ধশীল ডিপার্টমেন্ট। এই বিভাগ থেকে অনেক বড় জায়গায় যাওয়া অসংখ্য নজির রয়েছে। তুমি যদি এখন থেকে তোমার সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করো তোমার সফলতা যে শেষ চূড়া সেটা স্পর্শ করা সম্ভব বলে আমি মনে করি। ভর্তি যুদ্ধে হাজার শিক্ষার্থীকে পিছনে ফেলে তুমি এই স্থানে এসেছো। অবশ্যই তোমরা প্রত্যেকে মেধাবী এবং সফল মানুষ।

 

প্রোগ্রাম সম্পর্কে ২০২১-২০২২ সেশনের (উচ্ছ্বাসে-৪৮) শিক্ষার্থী শাহারিয়ার ইমন রিদয় বলেন, আমাদের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে প্রতিবছর ইমিডিয়েট সিনিয়ররা বিভাগে আগত নতুন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেয়। সেই ধারাবাহিকতায় আমরাও আমাদের জুনিয়র ব্যাচকে নবীন বরণের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক ভাবে বরণ করে নিয়েছি। এই আয়োজন সুন্দর করে সফল করতে পেরে আমাদের থেকে খুব আনন্দ লাগতেছে।

Tag :
Popular Post

বেরোবিতে কোঠা ইস্যুতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা

চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের জমকালো আয়োজনে নবীন বরণ 

Update Time : ০৫:৩৩:৩০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ২০২১-২০২২ সেশন (উচ্ছ্বাসে-৪৮) এর শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ২০২২-২০২৩ সেশনের (প্রাতিস্বিক-৪৯) নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেওয়ার জন্য জমকালো আয়োজনে আয়োজন করা হয়েছে নবীন বরণ অনুষ্ঠান।

 

বিশ্ববিদ্যালয় বোটানিক্যাল গার্ডেনে ৪৮ ব্যাচের শিক্ষার্থী মো. ফুয়াদ মন্ডল ও নিশাত শাওরিনের সঞ্চালনায় সকাল ১১টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চলে এই জমকালো আয়োজনের নবীন বরণ অনুষ্ঠান।

 

নবীন বরণ অনুষ্ঠানে নবীনদের বরণ করে নেওয়া, দুপুরের খাবার আয়োজন, ছেলেদের জন্য ক্রিকেট বল নিক্ষেপ মেয়েদের জন্য চেয়ার খেলা, এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

 

অনুষ্ঠানের শুরুতে ২০২১-২০২২ সেশনের (উচ্ছ্বাসে-৪৮) এর পক্ষ থেকে ২০২২-২০২৩ সেশনের (প্রাতিস্বিক-৪৯) নবীনদের শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়।

 

নবীন শিক্ষার্থী মাহফুজ রহমান অনুভুতি প্রকাশ করে বলেন, আপনারা যা আয়োজন করেছেন তা আমাদের জন্য কল্পনাতীত।এত সুন্দর আয়োজন দেখে আমাদের খুব ভালো লাগছে। বাসা থেকে অনেক দূরে থেকেও আমরা আপন একটা পরিবার পেয়েছি। আজীবন যেন আমাদের এই ভাতৃত্বের বন্ধন অটুট থাকে।

 

আরেক নবীন শিক্ষার্থী এস এম অভি তার অনুভুতি ব্যক্ত করে বলেন, অনেককেই দেখতাম তাদের বিভাগের নবীন বরণ নিয়ে বেশি উচ্ছ্বাসিত, এসব দেখে আমাদের অনেক কষ্ট হতো। কিন্তু ধৈর্য ধরার ফল যে এত জাঁকজমক হবে তা বিশ্বাস করতে পারছি না। আমি আমাদের ব্যাচের পক্ষ থেকে ভাইদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এবং ভবিষ্যতেও যেন এমন আয়োজন হয় সেই আশা ব্যক্ত করছি।

 

অনুষ্ঠানে নবীনদের উদ্দেশ্য ৪৮ ব্যাচের পক্ষ থেকে বক্তব্যে ফাতেমা তুজ জোহরা মীম বলেন, বসন্তের মধ্যাহ্নে বরণ করে নিচ্ছি নবীনদের অন্তরের অন্তস্থল থেকে । আমাদের এক সাথে পথ চলা শুরু সবসময় অটুট থাকুক আমাদের এই সিনিয়র -জুনিয়র ভ্রাতৃত্বের বন্ধন । একদিকে সিনিয়রদের ভালোবাসা ও স্নেহ অপরদিকে জুনিয়রদের সম্মান ও আন্তরিকতায় পরিপূর্ণ থাকুক এ ভ্রাতৃত্ব । আমাদের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ঐতিহ্য ধরে রাখার প্রত্যয় রইল।

 

মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন,

নিসন্দেহে চবির ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ একটি সমৃদ্ধশীল ডিপার্টমেন্ট। এই বিভাগ থেকে অনেক বড় জায়গায় যাওয়া অসংখ্য নজির রয়েছে। তুমি যদি এখন থেকে তোমার সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করো তোমার সফলতা যে শেষ চূড়া সেটা স্পর্শ করা সম্ভব বলে আমি মনে করি। ভর্তি যুদ্ধে হাজার শিক্ষার্থীকে পিছনে ফেলে তুমি এই স্থানে এসেছো। অবশ্যই তোমরা প্রত্যেকে মেধাবী এবং সফল মানুষ।

 

প্রোগ্রাম সম্পর্কে ২০২১-২০২২ সেশনের (উচ্ছ্বাসে-৪৮) শিক্ষার্থী শাহারিয়ার ইমন রিদয় বলেন, আমাদের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে প্রতিবছর ইমিডিয়েট সিনিয়ররা বিভাগে আগত নতুন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেয়। সেই ধারাবাহিকতায় আমরাও আমাদের জুনিয়র ব্যাচকে নবীন বরণের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক ভাবে বরণ করে নিয়েছি। এই আয়োজন সুন্দর করে সফল করতে পেরে আমাদের থেকে খুব আনন্দ লাগতেছে।