বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অনূর্ধ্ব নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন ভারত-বাংলাদেশ

অনূর্ধ্ব নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভারত-বাংলাদেশ। এমন ম্যাচ কখনো কেউ কখনো দেখেছে কিনা সন্দেহ। টাইব্রেকারেও ফল মীমাংসা না হওয়ায় রেফারি দুই দলের অধিনায়ককে ডেকে সিদ্ধান্ত নিলেন টস করার। সেখানে যে জিতবে, চ্যাম্পিয়ন হবে তারা—সেই টসই জন্ম দিল যত বিতর্কের।

 

টসে বাংলাদেশ হারের সঙ্গে সঙ্গে শিরোপা জয়ের খুশিতে উদ্‌যাপনে মেতে উঠেন ভারতের মেয়েরা। কিন্তু পরক্ষণেই লাগে মহাগ্যাঞ্জাম। বাংলাদেশের কোচ-কর্মকর্তারা আপত্তি জানান রেফারির সিদ্ধান্তের। ভারতও নাছোড়বান্দা। টস যে তারাই জিতেছে! কিন্তু দুই পক্ষের এমন নাছোড়বান্দা মানসিকতায় উত্তেজিত হয়ে উঠে কমলাপুর স্টেডিয়াম।

 

Shwapno Online Grocery Shopping

একপর্যায়ে মাঠ ছেড়ে যায় ভারত। ফল নিষ্পত্তির জন্য ২ ঘণ্টা বেশি সময় অপেক্ষার পর অবশেষে দুই দলকে যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়েছে।

 

ফাইনালকে ঘিরে এই বিতর্ক জন্ম নেয় মূলত শ্রীলঙ্কান ম্যাচ কমিশনার সিলভা জয়সুরিয়া ডিলনের ভুলে। আন্তর্জাতিকভাবে টাইব্রেকারে ফল নির্ধারণ না হওয়া পর্যন্ত শট নেওয়ার নিয়ম থাকলেও ম্যাচ কমিশনার দুই অধিনায়ককে ডাকেন টসের জন্য। তাতেই জন্ম বিতর্কের। সেই গ্যাঞ্জামের সময় জানা যায়, ভারত ৩০ মিনিটের মধ্যে মাঠে না ফিরলে বিজয়ী ঘোষণা করা হতে পারে বাংলাদেশকে। তবে সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। লম্বা সময় অপেক্ষা করতে হলেও দুই দলকে যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়েছে

 

এই বিতর্কের আগে দারুণ এক উপভোগ্য ফাইনাল দেখেছেন মাঠের দর্শকেরা। ম্যাচে ৮ মিনিটে শিবানী দেবীর গোলে পিছিয়ে পড়েছিল বাংলাদেশ। অতিরিক্ত ৪ মিনিট সময়ের এক মিনিট আগে সাগরিকার গোলে ম্যাচে সমতায় ফেরে বাংলাদেশ। খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। সেই টাইব্রেকার থেকেই জন্ম নিয়েছে যত বিতর্কের।

Tag :

অনূর্ধ্ব নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন ভারত-বাংলাদেশ

Update Time : ০৪:১৯:৪২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

অনূর্ধ্ব নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভারত-বাংলাদেশ। এমন ম্যাচ কখনো কেউ কখনো দেখেছে কিনা সন্দেহ। টাইব্রেকারেও ফল মীমাংসা না হওয়ায় রেফারি দুই দলের অধিনায়ককে ডেকে সিদ্ধান্ত নিলেন টস করার। সেখানে যে জিতবে, চ্যাম্পিয়ন হবে তারা—সেই টসই জন্ম দিল যত বিতর্কের।

 

টসে বাংলাদেশ হারের সঙ্গে সঙ্গে শিরোপা জয়ের খুশিতে উদ্‌যাপনে মেতে উঠেন ভারতের মেয়েরা। কিন্তু পরক্ষণেই লাগে মহাগ্যাঞ্জাম। বাংলাদেশের কোচ-কর্মকর্তারা আপত্তি জানান রেফারির সিদ্ধান্তের। ভারতও নাছোড়বান্দা। টস যে তারাই জিতেছে! কিন্তু দুই পক্ষের এমন নাছোড়বান্দা মানসিকতায় উত্তেজিত হয়ে উঠে কমলাপুর স্টেডিয়াম।

 

Shwapno Online Grocery Shopping

একপর্যায়ে মাঠ ছেড়ে যায় ভারত। ফল নিষ্পত্তির জন্য ২ ঘণ্টা বেশি সময় অপেক্ষার পর অবশেষে দুই দলকে যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়েছে।

 

ফাইনালকে ঘিরে এই বিতর্ক জন্ম নেয় মূলত শ্রীলঙ্কান ম্যাচ কমিশনার সিলভা জয়সুরিয়া ডিলনের ভুলে। আন্তর্জাতিকভাবে টাইব্রেকারে ফল নির্ধারণ না হওয়া পর্যন্ত শট নেওয়ার নিয়ম থাকলেও ম্যাচ কমিশনার দুই অধিনায়ককে ডাকেন টসের জন্য। তাতেই জন্ম বিতর্কের। সেই গ্যাঞ্জামের সময় জানা যায়, ভারত ৩০ মিনিটের মধ্যে মাঠে না ফিরলে বিজয়ী ঘোষণা করা হতে পারে বাংলাদেশকে। তবে সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। লম্বা সময় অপেক্ষা করতে হলেও দুই দলকে যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়েছে

 

এই বিতর্কের আগে দারুণ এক উপভোগ্য ফাইনাল দেখেছেন মাঠের দর্শকেরা। ম্যাচে ৮ মিনিটে শিবানী দেবীর গোলে পিছিয়ে পড়েছিল বাংলাদেশ। অতিরিক্ত ৪ মিনিট সময়ের এক মিনিট আগে সাগরিকার গোলে ম্যাচে সমতায় ফেরে বাংলাদেশ। খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। সেই টাইব্রেকার থেকেই জন্ম নিয়েছে যত বিতর্কের।