শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাককানইবিতে সাংবাদিক পেটানোর প্রতিবাদে মানববন্ধন শেষে ৫ দফা দাবি ও ২৪ ঘন্টার আলটিমেটাম

 

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনায় দ্রুত বিচার ও বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিকদের নিরাপত্তার দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সকল সাংবাদিকরা মানববন্ধন করেছে।

মঙ্গলবার ( ৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবনের সামনে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

মানববন্ধনে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাবেক সভাপতি রাশেদুজ্জামান রনি, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আসলাম বেগ, নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের সভাপতি নবাব মো. শওকত জাহান, সাধারণ সম্পাদক জিহাদুজ্জামান জিসান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিফাত শাহরিয়ার প্রিয়ানসহ সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকরা ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা বক্তব্য রাখেন।

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের পাশাপাশি ত্রিশাল প্রেসক্লাব, ত্রিশাল রিপোর্টস ইউনিটি নেতৃবৃন্দ এবং ময়মনসিংহে কর্মরত বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকরা সংহতি জানিয়ে অংশগ্রহণ করে।

মানববন্ধনে অংশগ্রহন করে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী দৈনিক সমকালের ত্রিশাল প্রতিনিধি মতিউর রহমান সেলিম বলেন, কোন কারণ ছাড়াই ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা যেভাবে হামলা করা হয়েছে এটা নজিরবিহীন এবং অমানবিক। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ভূমিকার সমালোচনা করে বলেন, প্রশাসন কোন কার্যকর ব্যাবস্থা না নিয়ে যেভাবে আচরণ করছে তার তিনি তীব্র নিন্দা জানান।

ত্রিশাল প্রেসক্লাবের সভাপতি খুরশিদুর আলম মুজিব বলেন, সাংবাদিকদের উপর হামলা যে কেউ করুক না কেন তাদেরকে ছাড় দেওয়া যাবে না। প্রয়োজনে সারাদেশে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। প্রশাসনকে হুশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন এর বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন না করা তাহলে ঢাকা- ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করার ঘোসনা দেন। একই বক্তব্য দেন ত্রিশাল প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নোমান।

মানববন্ধনের পর জড়িতদের, স্থায়ী বহিষ্কার, গণমাধ্যমে সিসিটিভি ফুটেজ প্রদান, গণমাধ্যমে প্রশাসনের বিতর্কিত বক্তব্য প্রত্যাহার,সন্ত্রাসীদের বর্তান অবস্থান ব্যাখা এবং আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে ব্যাবস্থা গ্রহনের আল্টিমেটামসহ পাঁচ দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের গণস্বাক্ষর সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

Tag :

জাককানইবিতে সাংবাদিক পেটানোর প্রতিবাদে মানববন্ধন শেষে ৫ দফা দাবি ও ২৪ ঘন্টার আলটিমেটাম

Update Time : ১১:৪২:৫৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনায় দ্রুত বিচার ও বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিকদের নিরাপত্তার দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সকল সাংবাদিকরা মানববন্ধন করেছে।

মঙ্গলবার ( ৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবনের সামনে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

মানববন্ধনে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাবেক সভাপতি রাশেদুজ্জামান রনি, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আসলাম বেগ, নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের সভাপতি নবাব মো. শওকত জাহান, সাধারণ সম্পাদক জিহাদুজ্জামান জিসান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিফাত শাহরিয়ার প্রিয়ানসহ সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকরা ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা বক্তব্য রাখেন।

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের পাশাপাশি ত্রিশাল প্রেসক্লাব, ত্রিশাল রিপোর্টস ইউনিটি নেতৃবৃন্দ এবং ময়মনসিংহে কর্মরত বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকরা সংহতি জানিয়ে অংশগ্রহণ করে।

মানববন্ধনে অংশগ্রহন করে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী দৈনিক সমকালের ত্রিশাল প্রতিনিধি মতিউর রহমান সেলিম বলেন, কোন কারণ ছাড়াই ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা যেভাবে হামলা করা হয়েছে এটা নজিরবিহীন এবং অমানবিক। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ভূমিকার সমালোচনা করে বলেন, প্রশাসন কোন কার্যকর ব্যাবস্থা না নিয়ে যেভাবে আচরণ করছে তার তিনি তীব্র নিন্দা জানান।

ত্রিশাল প্রেসক্লাবের সভাপতি খুরশিদুর আলম মুজিব বলেন, সাংবাদিকদের উপর হামলা যে কেউ করুক না কেন তাদেরকে ছাড় দেওয়া যাবে না। প্রয়োজনে সারাদেশে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। প্রশাসনকে হুশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন এর বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন না করা তাহলে ঢাকা- ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করার ঘোসনা দেন। একই বক্তব্য দেন ত্রিশাল প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নোমান।

মানববন্ধনের পর জড়িতদের, স্থায়ী বহিষ্কার, গণমাধ্যমে সিসিটিভি ফুটেজ প্রদান, গণমাধ্যমে প্রশাসনের বিতর্কিত বক্তব্য প্রত্যাহার,সন্ত্রাসীদের বর্তান অবস্থান ব্যাখা এবং আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে ব্যাবস্থা গ্রহনের আল্টিমেটামসহ পাঁচ দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের গণস্বাক্ষর সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।