রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্যারিস খালে মেয়র আতিকুলের অভিনব অভিযান ।

 মিরপুরের প্যারিস খাল এখন পরিণত হয়েছে ময়লার ভাগাড়ে; পানির ওপর ময়লা আবর্জনার কয়েক ফুট পুরু স্তর জমেছে।

বুধবার প্যারিস খালের পরিস্থিতি দেখতে গিয়ে সেই আবর্জনার ওপর দিয়ে হাঁটলেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

মিরপুর ১০ নম্বর সেকশনের প্যারিস খালের বর্জ্য অপসারণ এবং খালের দুই পাড়ের অবৈধ দখলের অবস্থা দেখতে আসেন আতিকুল ইসলাম। এ সময় খাল পাড়ের বিভিন্ন অংশ তিনি ঘুরে দেখেন।

খালের প্যারিস রোড অংশে আবর্জনার স্তূপ এতটাই পুরু যে তার ওপর দিয়ে লোকজন চলাচল করে৷ সেটা দেখে মেয়র আতিকুল ইসলামও বাঁশের সাঁকো দিয়ে খালের মাঝখানে যান। সেখানে দাঁড়িয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে খালে নেমে পড়েন।
আতিকুল ইসলাম বলেন, ময়লার কারণে খালে পানির কোনো প্রবাহ নেই। আশপাশের বাসার সুয়ারেজের ময়লাও এখানে ফেলা হয়।

“এই খালের প্রস্থ থাকার কথা ৪০ ফুট, কিন্তু এখন কোথাও ২২ ফুট, কোথাও ১৮ ফুট। ময়লার কারণে পানি যেতে পারে না। এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে এ খাল পরিষ্কার করতে হবে।”
শুক্রবার খাল পরিষ্কারের কাজ শুরু হবে জানিয়ে মেয়র বলেন, খাল উদ্ধার করতে হলে আশপাশের অবৈধ ঘরবাড়ি ভাঙতে হবে। সেই বার্তা দিতেই তিনি এসেছেন।
খাল দখলমুক্ত করে পরিষ্কার করা হবে। দখলদারদের বলতে চাই, ঢাকাবাসীর জন্য খালের জায়গা ছেড়ে দিতে হবে।”

খালের দুই পাড়ে বস্তি ঘর তৈরি করে নিম্ন আয়ের মানুষ বসবাস করছে। তাদের বিষয়ে কী হবে জানতে চাইলে মেয়র বলেন, “তাদের সমস্যার সমাধান করা দরকার। কিন্তু খাল দখল সমাধান হতে পারে না।”

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা এবং স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলররা এ সময় মেয়র আতিকুল ইসলামের সঙ্গে ছিলেন।

কালের চিঠি / ফাহিম

Tag :

প্যারিস খালে মেয়র আতিকুলের অভিনব অভিযান ।

Update Time : ০৭:২৭:২৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 মিরপুরের প্যারিস খাল এখন পরিণত হয়েছে ময়লার ভাগাড়ে; পানির ওপর ময়লা আবর্জনার কয়েক ফুট পুরু স্তর জমেছে।

বুধবার প্যারিস খালের পরিস্থিতি দেখতে গিয়ে সেই আবর্জনার ওপর দিয়ে হাঁটলেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

মিরপুর ১০ নম্বর সেকশনের প্যারিস খালের বর্জ্য অপসারণ এবং খালের দুই পাড়ের অবৈধ দখলের অবস্থা দেখতে আসেন আতিকুল ইসলাম। এ সময় খাল পাড়ের বিভিন্ন অংশ তিনি ঘুরে দেখেন।

খালের প্যারিস রোড অংশে আবর্জনার স্তূপ এতটাই পুরু যে তার ওপর দিয়ে লোকজন চলাচল করে৷ সেটা দেখে মেয়র আতিকুল ইসলামও বাঁশের সাঁকো দিয়ে খালের মাঝখানে যান। সেখানে দাঁড়িয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে খালে নেমে পড়েন।
আতিকুল ইসলাম বলেন, ময়লার কারণে খালে পানির কোনো প্রবাহ নেই। আশপাশের বাসার সুয়ারেজের ময়লাও এখানে ফেলা হয়।

“এই খালের প্রস্থ থাকার কথা ৪০ ফুট, কিন্তু এখন কোথাও ২২ ফুট, কোথাও ১৮ ফুট। ময়লার কারণে পানি যেতে পারে না। এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে এ খাল পরিষ্কার করতে হবে।”
শুক্রবার খাল পরিষ্কারের কাজ শুরু হবে জানিয়ে মেয়র বলেন, খাল উদ্ধার করতে হলে আশপাশের অবৈধ ঘরবাড়ি ভাঙতে হবে। সেই বার্তা দিতেই তিনি এসেছেন।
খাল দখলমুক্ত করে পরিষ্কার করা হবে। দখলদারদের বলতে চাই, ঢাকাবাসীর জন্য খালের জায়গা ছেড়ে দিতে হবে।”

খালের দুই পাড়ে বস্তি ঘর তৈরি করে নিম্ন আয়ের মানুষ বসবাস করছে। তাদের বিষয়ে কী হবে জানতে চাইলে মেয়র বলেন, “তাদের সমস্যার সমাধান করা দরকার। কিন্তু খাল দখল সমাধান হতে পারে না।”

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা এবং স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলররা এ সময় মেয়র আতিকুল ইসলামের সঙ্গে ছিলেন।

কালের চিঠি / ফাহিম