মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইজতেমায় অংশ নিতে এসে মুসল্লির মৃত্যু

 

টঙ্গীর তুরাগ তীরে ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপে অংশ নিতে এসে ইউনুস মিয়া (৬০) নামে এক মুসল্লি মারা গেছেন।

 

আজ বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে তার মৃত্যু হয়। মৃত ইউনুছ মিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সরাইল থানার অরুয়াইল ইউনিয়নের ধামাউরা গ্রামের মৃত বুদু মিয়ার ছেলে।

 

মজিবুর রহমান নামে তার সঙ্গে থাকা এক মুসল্লি বলেন, ‘আমরা বুধবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ২৩ জনের একটি জামাত নিয়ে টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানের উদ্দেশ্যে রওনা হই। দুপুরের দিকে টঙ্গী পৌঁছালে ইউনুস অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে টঙ্গীর শহিদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।‘

 

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক বলেন, ‘হাসপাতালে নিয়ে আসার আগে ওই মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। হৃদ্‌যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

 

বিশ্ব ইজতেমার (যোবায়েরপন্থী) আয়োজক কমিটির গণমাধ্যম সমন্বয়ক মুফতি জহির ইবনে মুসলিম বলেন, ‘মৃত্যুর বিষয়টি আমাদের জানানো হয়নি। ইজতেমায় অংশ নিতে এসে কোনো মুসল্লির মৃত্যু হলে ময়দানে গোসল ও জানাজার নামাজের ব্যবস্থা রয়েছে।’

 

আগামী ২ থেকে ৪ ফেব্রুয়ারি টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপ। মাঝে চার দিন বিরতি দিয়ে ৯ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় ধাপের ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে।

 

কালের চিঠি /আলিফ

Tag :

ইজতেমায় অংশ নিতে এসে মুসল্লির মৃত্যু

Update Time : ০৩:০০:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪

 

টঙ্গীর তুরাগ তীরে ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপে অংশ নিতে এসে ইউনুস মিয়া (৬০) নামে এক মুসল্লি মারা গেছেন।

 

আজ বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে তার মৃত্যু হয়। মৃত ইউনুছ মিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সরাইল থানার অরুয়াইল ইউনিয়নের ধামাউরা গ্রামের মৃত বুদু মিয়ার ছেলে।

 

মজিবুর রহমান নামে তার সঙ্গে থাকা এক মুসল্লি বলেন, ‘আমরা বুধবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ২৩ জনের একটি জামাত নিয়ে টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানের উদ্দেশ্যে রওনা হই। দুপুরের দিকে টঙ্গী পৌঁছালে ইউনুস অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে টঙ্গীর শহিদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।‘

 

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক বলেন, ‘হাসপাতালে নিয়ে আসার আগে ওই মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। হৃদ্‌যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

 

বিশ্ব ইজতেমার (যোবায়েরপন্থী) আয়োজক কমিটির গণমাধ্যম সমন্বয়ক মুফতি জহির ইবনে মুসলিম বলেন, ‘মৃত্যুর বিষয়টি আমাদের জানানো হয়নি। ইজতেমায় অংশ নিতে এসে কোনো মুসল্লির মৃত্যু হলে ময়দানে গোসল ও জানাজার নামাজের ব্যবস্থা রয়েছে।’

 

আগামী ২ থেকে ৪ ফেব্রুয়ারি টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপ। মাঝে চার দিন বিরতি দিয়ে ৯ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় ধাপের ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে।

 

কালের চিঠি /আলিফ