রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কোহলির বিরুদ্ধে থুতু মারার গুরুতর অভিযোগ এলগারের

 

সম্প্রতি একটি পডকাস্টে ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে ভিরাট কোহলির সঙ্গে দ্বন্দ্বের কথা তুলে ধরেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক এই ক্রিকেটার।

ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট ইনিংসে যখন আউট হন ডিন এলগার, সতীর্থদের তখন উদযাপন করতে বারণ করেছিলেন ভিরাট কোহলি। দুইজনের মধ্যে উষ্ণ সম্পর্কের আভাস মেলে এই ঘটনায়। কিন্তু এলগারের ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে তাদের সম্পর্ক একদমই ভালো ছিল না। দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক এই ব্যাটসম্যান বললেন, একবার তাকে থুতু পর্যন্ত মেরেছিলেন ভারতীয় মহাতারকা।

ভারতের বিপক্ষে কেপ টাউন টেস্ট দিয়ে জানুয়ারির শুরুতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানান এলগার। মুকেশ কুমারের বলে কোহলির হাতে ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় তার ক্যারিয়ার। ক্যাচটি নিয়ে কোনো উল্লাস না করা কোহলি জড়িয়ে ধরে বিদায় দেন এলগারকে। পরে দক্ষিণ আফ্রিকান ওপেনারকে একটি জার্সিও উপহার দেন ভারতীয় ব্যাটসম্যান।

 

সম্প্রতি ‘বান্টার, উইথ দা বয়েস’ পডকাস্টে সেই কোহলির বিরুদ্ধেই থুতু মারার গুরুতর অভিযোগ তুললেন এলগার! সঙ্গে জানালেন, পরে কোহলি নাকি এই কাজের জন্য ক্ষমাও চেয়েছিলেন।

আলোচনার এক পর্যায়ে এলগারকে জিজ্ঞাসা করা হয়, কোহলি-অশ্বিনের সঙ্গে তার কখনও দ্বন্দ্ব হয়েছিল কিনা। এলগার বলেন, সবসময়ই লেগে যেত তাদের। এরপরই তিনি বর্ণনা দেন অপ্রীতিকর ওই কাণ্ডের।

 

ঘটনাটি ঘটেছিল ২০১৫ সালে, প্রথমবার ভারতের বিপক্ষে টেস্ট খেলছিলেন এলগার। ওই সফরের এক ম্যাচে ব্যাটিং করতে নামা এলগারকে নাকি থুতু মারেন কোহলি।

 

“ওই পিচগুলো ছিল হাস্যকর…আমি ব্যাট করতে ক্রিজে যাই এবং তখন আমি আসলে অশ্বিন ও নামটা কী যেন, জাদেজাকে সামলাতে লড়াই করছিলাম, তখন কোহলি আমাকে থুতু মারে।”

আমি তাকে বলেছিলাম, তুমি যদি এটা করো, আমি ব্যাট দিয়ে তোমাকে… (আঞ্চলিক ভাষায় গালি দিয়েছিলেন এলগার)।”

তখন এলগারের কাছে জানতে চাওয়া হয়, আঞ্চলিক ভাষায় বলা শব্দটি কোহলি বুঝেছিলেন কিনা। এলগার বলেন, “হ্যাঁ, কারণ আরসিবিতে ডি ভিলিয়ার্স তার সতীর্থ ছিল। তাই সে বুঝেছিল।”

 

“আমি তাকে পুনরায় বলেছিলাম, তুমি যদি এটা করো…আমি তোমাকে শেষ করে দেব। এরপর সে বলতে শুরু করল, “হেই…তুমি… তুমি’”

 

দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্সের ঘনিষ্ঠ বন্ধু কোহলি। আইপিএলে দুইজনে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার বেঙ্গালুরুর হয়ে খেলেছেন অনেক বছর। ডি ভিলিয়ার্স আইপিএলকে বিদায় বলে দিলেও কোহলি এখনও আছেন দলটিতে।

 

এলগার জানান, থুতু কাণ্ড নিয়ে কোহলির সঙ্গে কথা বলেছিলেন ডি ভিলিয়ার্স। পরে ২০১৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে নাকি এলগারের কাছে ক্ষমা চান কোহলি।

 

“ডি ভিলিয়ার্স জানতে পেরেছিল, সে (কোহলি) কী করেছিল। এরপর ডি ভিলিয়ার্স তার কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করে, ‘আমার সতীর্থের দিকে তুমি কেন থুতু মারলে?’ দুই-তিন বছর পর দক্ষিণ আফ্রিকায়, কোহলি আমাকে একপাশে ডেকে নিয়ে বলল, ‘সিরিজ শেষে আমরা কি ড্রিংক করতে যেতে পারি? আমি আমার কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চাইতে চাই।’ আমরা রাত ৩টা পর্যন্ত ড্রিংক করেছিলাম, তখন সে ড্রিংক করত।”

 

কালের চিঠি/ ফাহিম

Tag :

কোহলির বিরুদ্ধে থুতু মারার গুরুতর অভিযোগ এলগারের

Update Time : ০৬:১৪:১৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৪

 

সম্প্রতি একটি পডকাস্টে ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে ভিরাট কোহলির সঙ্গে দ্বন্দ্বের কথা তুলে ধরেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক এই ক্রিকেটার।

ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট ইনিংসে যখন আউট হন ডিন এলগার, সতীর্থদের তখন উদযাপন করতে বারণ করেছিলেন ভিরাট কোহলি। দুইজনের মধ্যে উষ্ণ সম্পর্কের আভাস মেলে এই ঘটনায়। কিন্তু এলগারের ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে তাদের সম্পর্ক একদমই ভালো ছিল না। দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক এই ব্যাটসম্যান বললেন, একবার তাকে থুতু পর্যন্ত মেরেছিলেন ভারতীয় মহাতারকা।

ভারতের বিপক্ষে কেপ টাউন টেস্ট দিয়ে জানুয়ারির শুরুতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানান এলগার। মুকেশ কুমারের বলে কোহলির হাতে ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় তার ক্যারিয়ার। ক্যাচটি নিয়ে কোনো উল্লাস না করা কোহলি জড়িয়ে ধরে বিদায় দেন এলগারকে। পরে দক্ষিণ আফ্রিকান ওপেনারকে একটি জার্সিও উপহার দেন ভারতীয় ব্যাটসম্যান।

 

সম্প্রতি ‘বান্টার, উইথ দা বয়েস’ পডকাস্টে সেই কোহলির বিরুদ্ধেই থুতু মারার গুরুতর অভিযোগ তুললেন এলগার! সঙ্গে জানালেন, পরে কোহলি নাকি এই কাজের জন্য ক্ষমাও চেয়েছিলেন।

আলোচনার এক পর্যায়ে এলগারকে জিজ্ঞাসা করা হয়, কোহলি-অশ্বিনের সঙ্গে তার কখনও দ্বন্দ্ব হয়েছিল কিনা। এলগার বলেন, সবসময়ই লেগে যেত তাদের। এরপরই তিনি বর্ণনা দেন অপ্রীতিকর ওই কাণ্ডের।

 

ঘটনাটি ঘটেছিল ২০১৫ সালে, প্রথমবার ভারতের বিপক্ষে টেস্ট খেলছিলেন এলগার। ওই সফরের এক ম্যাচে ব্যাটিং করতে নামা এলগারকে নাকি থুতু মারেন কোহলি।

 

“ওই পিচগুলো ছিল হাস্যকর…আমি ব্যাট করতে ক্রিজে যাই এবং তখন আমি আসলে অশ্বিন ও নামটা কী যেন, জাদেজাকে সামলাতে লড়াই করছিলাম, তখন কোহলি আমাকে থুতু মারে।”

আমি তাকে বলেছিলাম, তুমি যদি এটা করো, আমি ব্যাট দিয়ে তোমাকে… (আঞ্চলিক ভাষায় গালি দিয়েছিলেন এলগার)।”

তখন এলগারের কাছে জানতে চাওয়া হয়, আঞ্চলিক ভাষায় বলা শব্দটি কোহলি বুঝেছিলেন কিনা। এলগার বলেন, “হ্যাঁ, কারণ আরসিবিতে ডি ভিলিয়ার্স তার সতীর্থ ছিল। তাই সে বুঝেছিল।”

 

“আমি তাকে পুনরায় বলেছিলাম, তুমি যদি এটা করো…আমি তোমাকে শেষ করে দেব। এরপর সে বলতে শুরু করল, “হেই…তুমি… তুমি’”

 

দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্সের ঘনিষ্ঠ বন্ধু কোহলি। আইপিএলে দুইজনে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার বেঙ্গালুরুর হয়ে খেলেছেন অনেক বছর। ডি ভিলিয়ার্স আইপিএলকে বিদায় বলে দিলেও কোহলি এখনও আছেন দলটিতে।

 

এলগার জানান, থুতু কাণ্ড নিয়ে কোহলির সঙ্গে কথা বলেছিলেন ডি ভিলিয়ার্স। পরে ২০১৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে নাকি এলগারের কাছে ক্ষমা চান কোহলি।

 

“ডি ভিলিয়ার্স জানতে পেরেছিল, সে (কোহলি) কী করেছিল। এরপর ডি ভিলিয়ার্স তার কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করে, ‘আমার সতীর্থের দিকে তুমি কেন থুতু মারলে?’ দুই-তিন বছর পর দক্ষিণ আফ্রিকায়, কোহলি আমাকে একপাশে ডেকে নিয়ে বলল, ‘সিরিজ শেষে আমরা কি ড্রিংক করতে যেতে পারি? আমি আমার কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চাইতে চাই।’ আমরা রাত ৩টা পর্যন্ত ড্রিংক করেছিলাম, তখন সে ড্রিংক করত।”

 

কালের চিঠি/ ফাহিম