রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যানের হাত-পা ভাঙার ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার ৩

 নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার জেরে গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবিরকে (৫২) কুপিয়ে-পিটিয়ে হাত-পা ভাঙার ঘটনায় মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় এজাহার নামীয় ৩ আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
মঙ্গলবার ( ৯ জানুয়ারি) দুপুরে সাঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মমতাজুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
তিনি বলেন, আহতের বড় ভাই জাকির হোসেন বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেছে। মামলায় ২৭ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ১৫/২০ জনকে আসামি করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, আজ মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত হামলার মামলার এজাহার নামীয় ৩ আসামি গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।
এর আগে (৮ জানুয়ারি) বিকেল ৪ টার দিকে  উপজেলার  হাটভরতখালী মোড়ে হামলার শিকার হন জাহাঙ্গীর কবির।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সাঘাটা উপজেলার ভরতখালী ইউনিয়নের গটিয়া এলাকা থেকে সিএনজি চালিত অটোরিকশায় ঘুড়িদহ ইউনিয়নের যাদুরতাইড় গ্রামের নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন জাহাঙ্গীর কবির। পথে হাট ভরতখালী এলাকায় পথরোধ রোধ করে সশস্ত্র দুর্বৃত্ত ।  তাকে সিএনজি থেকে নামিয়ে লোহার রড, হকিস্টিকসহ দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে-পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে দেয়।
স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে ও পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখান থেকে এ জনপ্রতিনিধিকে হেলিকপ্টারে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে নেয়া হয় বলে নিশ্চিত করেন, সাঘাটা উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বিপ্লব।
এদিকে, সাঘাটা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও বোনারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নাসিরুল ইসলাম স্বপন বলেন, নির্বাচনী জেরে সাঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন সুইট ও তার ভাই সুজাউদ্দৌলার নেতৃত্বে জাহাঙ্গীর কবীরের ওপর পাশবিক এ হামলা চালায়।
উল্লেখ্য, প্রয়াত ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার মেয়ে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধা-৫ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারজানা রাব্বী বুবলীর নির্বাচনী প্রচারণার প্রধান সমন্বয়ক ছিলেন সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির।
সাঘাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবীর গাইবান্ধা জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি। তিনি প্রয়াত ডেপুটি স্পীকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়ার ভাগ্নে।
ফারজানা রাব্বী বুবলী ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও প্রয়াত ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার মেয়ে। দলের মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে ফারজানা রাব্বী বুবলী স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতিকে পেয়েছেন ৬৩ হাজার ৫২৬ ভোট। আসনটিতে নৌকার প্রার্থী মাহমুদ হাসান রিপন ১ লাখ ৭ হাজার ৩৯৭ ভোট পেয়ে দ্বিতীয়বারের মতো এমপি নির্বাচিত হন।
Tag :

সাঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যানের হাত-পা ভাঙার ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার ৩

Update Time : ১১:১০:৩২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৪
 নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার জেরে গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবিরকে (৫২) কুপিয়ে-পিটিয়ে হাত-পা ভাঙার ঘটনায় মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় এজাহার নামীয় ৩ আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
মঙ্গলবার ( ৯ জানুয়ারি) দুপুরে সাঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মমতাজুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
তিনি বলেন, আহতের বড় ভাই জাকির হোসেন বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেছে। মামলায় ২৭ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ১৫/২০ জনকে আসামি করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, আজ মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত হামলার মামলার এজাহার নামীয় ৩ আসামি গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।
এর আগে (৮ জানুয়ারি) বিকেল ৪ টার দিকে  উপজেলার  হাটভরতখালী মোড়ে হামলার শিকার হন জাহাঙ্গীর কবির।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সাঘাটা উপজেলার ভরতখালী ইউনিয়নের গটিয়া এলাকা থেকে সিএনজি চালিত অটোরিকশায় ঘুড়িদহ ইউনিয়নের যাদুরতাইড় গ্রামের নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন জাহাঙ্গীর কবির। পথে হাট ভরতখালী এলাকায় পথরোধ রোধ করে সশস্ত্র দুর্বৃত্ত ।  তাকে সিএনজি থেকে নামিয়ে লোহার রড, হকিস্টিকসহ দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে-পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে দেয়।
স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে ও পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখান থেকে এ জনপ্রতিনিধিকে হেলিকপ্টারে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে নেয়া হয় বলে নিশ্চিত করেন, সাঘাটা উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বিপ্লব।
এদিকে, সাঘাটা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও বোনারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নাসিরুল ইসলাম স্বপন বলেন, নির্বাচনী জেরে সাঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন সুইট ও তার ভাই সুজাউদ্দৌলার নেতৃত্বে জাহাঙ্গীর কবীরের ওপর পাশবিক এ হামলা চালায়।
উল্লেখ্য, প্রয়াত ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার মেয়ে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধা-৫ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারজানা রাব্বী বুবলীর নির্বাচনী প্রচারণার প্রধান সমন্বয়ক ছিলেন সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির।
সাঘাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবীর গাইবান্ধা জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি। তিনি প্রয়াত ডেপুটি স্পীকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়ার ভাগ্নে।
ফারজানা রাব্বী বুবলী ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও প্রয়াত ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার মেয়ে। দলের মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে ফারজানা রাব্বী বুবলী স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতিকে পেয়েছেন ৬৩ হাজার ৫২৬ ভোট। আসনটিতে নৌকার প্রার্থী মাহমুদ হাসান রিপন ১ লাখ ৭ হাজার ৩৯৭ ভোট পেয়ে দ্বিতীয়বারের মতো এমপি নির্বাচিত হন।