সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাইবান্ধায় ৬৪৬ ভোট কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে ২০ লক্ষাধিক ভোটার

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধার ৫টি আসনে আগামীকাল ৭ জানুয়ারি নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষে ইতোমধ্যে গাইবান্ধা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ ও প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। আর ওইসব আসনে ৬৪৬টি ভোট কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এতে ভোটকক্ষ রয়েছে ৪ হাজার ৪২৩টি। এই ৫টি আসনে মোট ২০ লাখ ৫২ হাজার ৬৯৮ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে জানা গেছে।

 

শনিবার (৬ জানুয়ারি) বিকেলে গাইবান্ধা জেলা নির্বাচন কার্যালয় থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

 

জানা যায়, ওই ৫টি আসন থেকে ৩৫ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনে ১০ জন, গাইবান্ধা-২ (সদর) আসনে ৫ জন, গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ি) আসনে ১১ জন, গাইবান্ধা-৪ (গোবিন্দগঞ্জ) আসনে ৩ জন ও গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। তবে গাইবান্ধা-৫ আসনের লাঙ্গল প্রতীক প্রার্থী আতাউর রহমান নির্বাচন থেকে সরে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন।

 

এদিকে, নির্বাচনকালীন দায়িত্ব পালনের জন্য ইতোমধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মাঠে রয়েছেন। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে সেনাবাহিনী ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় তারা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে ইতোমধ্যে তৎপরতা শুরু করেছে। প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসারদের সঙ্গে তাদের গুরুত্বের ওপর নির্ভর করে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হবে। এই বাহিনীর বাইরের পুলিশ সদস্যরা ভোটের দিন মোবাইল ফোর্স-স্ট্রাইকিং হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

 

অপরদিকে, নির্বাচন-পূর্ব অনিয়ম প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার তারিখ থেকে সরকারি গেজেটে নির্বাচনী ফলাফল প্রকাশ পর্যন্ত গাইবান্ধা জেলার ৫টি আসনে ৫টি নির্বাচনী তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। গঠিত সার্চ কমিটি ইতোমধ্যেই আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে বিভিন্ন প্রার্থীর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষে সার্বক্ষণিক সজাগ দৃষ্টিতে নির্বাচনী পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে নির্বাচন-পূর্ব অনিয়ম প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে নির্বাচন তদন্ত কমিটি।

 

গাইবান্ধা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুল মোত্তালিব বলেন, জেলার ৫টি আসনে ২০ লাখ ৫২ হাজার ৬৯৮টি ভোটার রয়েছে। এর মধ্যে গাইবান্ধা-১ আসনে ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৪৪, গাইবান্ধা-২ আসনে ৩ লাখ ৯১ হাজার ৯৬৯, গাইবান্ধা-৩ আসনে ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৮৭৬, গাইবান্ধা-৪ আসনে ৪ লাখ ৩৯ হাজার ৯২৪ ও গাইবান্ধা-৫ আসনে ৩ লাখ ৬২ হাজার ৮৮৫ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

Tag :

গাইবান্ধায় ৬৪৬ ভোট কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে ২০ লক্ষাধিক ভোটার

Update Time : ০২:৪৮:০৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৪

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধার ৫টি আসনে আগামীকাল ৭ জানুয়ারি নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষে ইতোমধ্যে গাইবান্ধা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ ও প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। আর ওইসব আসনে ৬৪৬টি ভোট কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এতে ভোটকক্ষ রয়েছে ৪ হাজার ৪২৩টি। এই ৫টি আসনে মোট ২০ লাখ ৫২ হাজার ৬৯৮ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে জানা গেছে।

 

শনিবার (৬ জানুয়ারি) বিকেলে গাইবান্ধা জেলা নির্বাচন কার্যালয় থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

 

জানা যায়, ওই ৫টি আসন থেকে ৩৫ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনে ১০ জন, গাইবান্ধা-২ (সদর) আসনে ৫ জন, গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ি) আসনে ১১ জন, গাইবান্ধা-৪ (গোবিন্দগঞ্জ) আসনে ৩ জন ও গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনে ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। তবে গাইবান্ধা-৫ আসনের লাঙ্গল প্রতীক প্রার্থী আতাউর রহমান নির্বাচন থেকে সরে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন।

 

এদিকে, নির্বাচনকালীন দায়িত্ব পালনের জন্য ইতোমধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মাঠে রয়েছেন। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে সেনাবাহিনী ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় তারা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে ইতোমধ্যে তৎপরতা শুরু করেছে। প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসারদের সঙ্গে তাদের গুরুত্বের ওপর নির্ভর করে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হবে। এই বাহিনীর বাইরের পুলিশ সদস্যরা ভোটের দিন মোবাইল ফোর্স-স্ট্রাইকিং হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

 

অপরদিকে, নির্বাচন-পূর্ব অনিয়ম প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার তারিখ থেকে সরকারি গেজেটে নির্বাচনী ফলাফল প্রকাশ পর্যন্ত গাইবান্ধা জেলার ৫টি আসনে ৫টি নির্বাচনী তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। গঠিত সার্চ কমিটি ইতোমধ্যেই আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে বিভিন্ন প্রার্থীর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষে সার্বক্ষণিক সজাগ দৃষ্টিতে নির্বাচনী পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে নির্বাচন-পূর্ব অনিয়ম প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে নির্বাচন তদন্ত কমিটি।

 

গাইবান্ধা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুল মোত্তালিব বলেন, জেলার ৫টি আসনে ২০ লাখ ৫২ হাজার ৬৯৮টি ভোটার রয়েছে। এর মধ্যে গাইবান্ধা-১ আসনে ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৪৪, গাইবান্ধা-২ আসনে ৩ লাখ ৯১ হাজার ৯৬৯, গাইবান্ধা-৩ আসনে ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৮৭৬, গাইবান্ধা-৪ আসনে ৪ লাখ ৩৯ হাজার ৯২৪ ও গাইবান্ধা-৫ আসনে ৩ লাখ ৬২ হাজার ৮৮৫ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।