রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিজ ভাষায় বই পেয়ে খুশি আদিবাসী শিশুরা

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৮:০৩:০৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জানুয়ারী ২০২৪
  • ২৮ Time View

বছরের প্রথম দিনেই রাঙামাটির শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হল নতুন পাঠ্য বই। সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীরা স্ব স্ব মাতৃভাষার বই পেয়ে আনন্দে আত্মহারা।

 

বই উৎসব উপলক্ষে সোমবার (১ জানুয়ারি) ক্ষুদে শিক্ষার্থীর পদচারণায় মুখর হয়ে উঠে রাঙামাটি শহরের গোধূলি আমানতবাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ। সকাল থেকেই শিক্ষার্থীরা অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা কখন হাতে আসবে নতুন বই। বই হাতে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা শিক্ষার্থীরা। খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখতে থাকে বইয়ের প্রতিটি পাতা।

 

সারা দেশে শিক্ষার্থীদের মাঝে বই বিতরণ করা হলেও রাঙামাটিতে এই বই উৎসবে রয়েছে ভিন্নতা। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধে প্রাক প্রাথমিক থেকে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের হাতে দেওয়া হয়েছে স্ব স্ব মাতৃভাষার বই। সাধারণ বইয়ের সঙ্গে নিজের ভাষার বই হাতে পেয়ে খুশি নৃতাত্ত্বিক শিশুরা।

 

২০১৭ সাল থেকে সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত চাকমা, মারমা ও ত্রিপুরা ভাষাভাষী শিশুদের দেওয়া হচ্ছে এসব বই।

 

রাঙামাটি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হৃষীকেশ শীল বলেন, জেলার চাহিদা অনুযায়ী সকল বই বিদ্যালয়ে পৌঁছে গেছে। সেগুলো বিতরণ করা হয়েছে। রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের উদ্যোগে মাতৃভাষা পাঠদানের জন্য স্ব স্ব ভাষায় শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ অব্যাহত আছে। দ্রুতই এই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

 

এ বিষয়ে রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন খান বলেন, সরকার বছরের প্রথম দিনে উৎসব জন্য বই পাঠিয়েছে, যথা সময়ে বাচ্চাদের হাতে বই দেওয়া হয়েছে।

 

এ বছর জেলায় ৭০৭ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৯১ হাজার ৩১৬ শিক্ষার্থীর মাঝে ৩ লাখ ৮৬ হাজার ৭৮৯ টি সাধারণ বই এবং ৯ হাজার ৯৯৪ শিক্ষার্থীর মাঝে ৬৩ হাজার ৪৬৮ টি (চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা) স্ব স্ব মাতৃভাষার বই বিতরণ করা হয়েছে।

Tag :

নিজ ভাষায় বই পেয়ে খুশি আদিবাসী শিশুরা

Update Time : ০৮:০৩:০৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জানুয়ারী ২০২৪

বছরের প্রথম দিনেই রাঙামাটির শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হল নতুন পাঠ্য বই। সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীরা স্ব স্ব মাতৃভাষার বই পেয়ে আনন্দে আত্মহারা।

 

বই উৎসব উপলক্ষে সোমবার (১ জানুয়ারি) ক্ষুদে শিক্ষার্থীর পদচারণায় মুখর হয়ে উঠে রাঙামাটি শহরের গোধূলি আমানতবাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ। সকাল থেকেই শিক্ষার্থীরা অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা কখন হাতে আসবে নতুন বই। বই হাতে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা শিক্ষার্থীরা। খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখতে থাকে বইয়ের প্রতিটি পাতা।

 

সারা দেশে শিক্ষার্থীদের মাঝে বই বিতরণ করা হলেও রাঙামাটিতে এই বই উৎসবে রয়েছে ভিন্নতা। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধে প্রাক প্রাথমিক থেকে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের হাতে দেওয়া হয়েছে স্ব স্ব মাতৃভাষার বই। সাধারণ বইয়ের সঙ্গে নিজের ভাষার বই হাতে পেয়ে খুশি নৃতাত্ত্বিক শিশুরা।

 

২০১৭ সাল থেকে সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত চাকমা, মারমা ও ত্রিপুরা ভাষাভাষী শিশুদের দেওয়া হচ্ছে এসব বই।

 

রাঙামাটি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হৃষীকেশ শীল বলেন, জেলার চাহিদা অনুযায়ী সকল বই বিদ্যালয়ে পৌঁছে গেছে। সেগুলো বিতরণ করা হয়েছে। রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের উদ্যোগে মাতৃভাষা পাঠদানের জন্য স্ব স্ব ভাষায় শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ অব্যাহত আছে। দ্রুতই এই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

 

এ বিষয়ে রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন খান বলেন, সরকার বছরের প্রথম দিনে উৎসব জন্য বই পাঠিয়েছে, যথা সময়ে বাচ্চাদের হাতে বই দেওয়া হয়েছে।

 

এ বছর জেলায় ৭০৭ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৯১ হাজার ৩১৬ শিক্ষার্থীর মাঝে ৩ লাখ ৮৬ হাজার ৭৮৯ টি সাধারণ বই এবং ৯ হাজার ৯৯৪ শিক্ষার্থীর মাঝে ৬৩ হাজার ৪৬৮ টি (চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা) স্ব স্ব মাতৃভাষার বই বিতরণ করা হয়েছে।