মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নতুন বছরে হাতে নতুন বই, উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থী

  • Reporter Name
  • Update Time : ১১:২৪:৩৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ জানুয়ারী ২০২৪
  • ১২ Time View

বান্দরবান প্রতিনিধি: জামিরতলী পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন বছরের প্রথম দিনেই কোমলমতি শিশুদের হাতে নতুন বই তুলে দেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

 

আজ সোমবার (০১ জানুয়ারি, ২০২৪ ইং) বান্দরবান জেলা, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা, ৫নং সোনাইছড়ি ইউনিয়নের অন্তর্গত জামিরতলী পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পক্ষ থেকে এই বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন অত্র বিদ্যালয়ে পরিচালনার কমিটির সভাপতি বাবু মংকাইন তংচংগ্যা।

 

এসময় অনুষ্ঠানে, বিদ্যালয়ের পরিচালনার কমিটির সদস্য ও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহ শিক্ষক শিক্ষীকা, ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

সকালে বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে নতুন বছরের নতুন বই বিতরণ করা হয়। প্রতিবছরের ন্যায় এবছরে ও নতুন পেয়ে খুশি বিদ্যালয়ের সকল ছাত্র-ছাত্রীরা।

 

 

 

এসময় বিনামূল্যে পাঠ্য বই বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বাবু মংকাইন তংচংগ্যা বলেন, কোমলমতি শিশুদের সুশিক্ষিত করতে বছরের প্রথম দিনে বিনামূল্যে পাঠ্য বই বিতরণ বর্তমান সরকারের একটি কর্মসূচি। সমতলের ন্যায় পাহাড়ের শিক্ষার্থীরাও যাতে সমানতালে শিক্ষা লাভ করতে পারে সে লক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

 

তিনি আরো বলেন, পড়ালেখার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়াঙ্গনে যুক্ত করতে হবে। এর ফলে তাদের মাঝে লুকিয়ে থাকা সুপ্ত প্রতিভাগুলো বিকশিত হবে। মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতে সকল শিক্ষার্থীদের উন্নয়নে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে। শিক্ষার মান বাড়াতে শুধু সরকারের একক প্রচেষ্টা নয়, অভিভাবক-শিক্ষক সহ দেশের সকলকে এর উন্নয়নে এগিয়ে আসতে হবে।

 

 

নতুন বই হাতে পেতে গতকাল সকাল থেকেই শিক্ষার্থীদের মধ্যে বেশ উৎসাহ আর উদ্দীপনা লক্ষ করা গেছে। অনেক স্কুলে এক বা দু’দিন আগে বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে নতুন ক্লাসে ওঠার জন্য যেমন একটি আনন্দ ছিল তেমনি শিক্ষার্থীরা অধীর আগ্রহে ছিল নতুন বই হাতে পাওয়ার জন্যও। নতুন বই শুধু শিক্ষার্থীদের আনন্দকেই বাড়িয়ে দেয়নি, সেই সাথে অভিভাবকদের মধ্যেও আনন্দের একটা রেশ দেখা গেছে। অপেক্ষাকৃত নিচের ক্লাসগুলোতে অভিভাবকরাও স্কুলে উপস্থিত থেকে নতুন বই সংগ্রহ করেছেন। অনেক অভিভাবককে স্কুলে এসে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে শিশুদের জন্য বই সংগ্রহ করতে দেখা গেছে। বিদ্যালয়ের সুনিল তংচংগ্যা নামে এক অভিভাবক জানান, অপেক্ষা করে বই সংগ্রহ করলেও কোনো অভিভাবকের মধ্যেই বিরক্তির ছাপ ছিল না। সন্তানদের জন্য নতুন বই সংগ্রহ করে অভিভাবক নিজেরাও আনন্দ পেয়েছেন।

 

 

২০১২ সাল থেকে বর্তমান সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে বই বিতরণ উৎসবের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিচ্ছে। এই কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় সারাদেশে একযোগে বছরের প্রথম দিন ১ জানুয়ারি শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্ট দফতরসমূহের কর্মকর্তা-কর্মচারির উপস্থিতিতে উৎসবমুখর ও আনন্দঘন পরিবেশে বই বিতরণ উদযাপিত হয়ে আসছে।

Tag :
Popular Post

বেরোবিতে কোঠা ইস্যুতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা

নতুন বছরে হাতে নতুন বই, উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থী

Update Time : ১১:২৪:৩৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ জানুয়ারী ২০২৪

বান্দরবান প্রতিনিধি: জামিরতলী পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন বছরের প্রথম দিনেই কোমলমতি শিশুদের হাতে নতুন বই তুলে দেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

 

আজ সোমবার (০১ জানুয়ারি, ২০২৪ ইং) বান্দরবান জেলা, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা, ৫নং সোনাইছড়ি ইউনিয়নের অন্তর্গত জামিরতলী পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পক্ষ থেকে এই বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন অত্র বিদ্যালয়ে পরিচালনার কমিটির সভাপতি বাবু মংকাইন তংচংগ্যা।

 

এসময় অনুষ্ঠানে, বিদ্যালয়ের পরিচালনার কমিটির সদস্য ও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহ শিক্ষক শিক্ষীকা, ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

সকালে বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে নতুন বছরের নতুন বই বিতরণ করা হয়। প্রতিবছরের ন্যায় এবছরে ও নতুন পেয়ে খুশি বিদ্যালয়ের সকল ছাত্র-ছাত্রীরা।

 

 

 

এসময় বিনামূল্যে পাঠ্য বই বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বাবু মংকাইন তংচংগ্যা বলেন, কোমলমতি শিশুদের সুশিক্ষিত করতে বছরের প্রথম দিনে বিনামূল্যে পাঠ্য বই বিতরণ বর্তমান সরকারের একটি কর্মসূচি। সমতলের ন্যায় পাহাড়ের শিক্ষার্থীরাও যাতে সমানতালে শিক্ষা লাভ করতে পারে সে লক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

 

তিনি আরো বলেন, পড়ালেখার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়াঙ্গনে যুক্ত করতে হবে। এর ফলে তাদের মাঝে লুকিয়ে থাকা সুপ্ত প্রতিভাগুলো বিকশিত হবে। মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতে সকল শিক্ষার্থীদের উন্নয়নে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে। শিক্ষার মান বাড়াতে শুধু সরকারের একক প্রচেষ্টা নয়, অভিভাবক-শিক্ষক সহ দেশের সকলকে এর উন্নয়নে এগিয়ে আসতে হবে।

 

 

নতুন বই হাতে পেতে গতকাল সকাল থেকেই শিক্ষার্থীদের মধ্যে বেশ উৎসাহ আর উদ্দীপনা লক্ষ করা গেছে। অনেক স্কুলে এক বা দু’দিন আগে বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে নতুন ক্লাসে ওঠার জন্য যেমন একটি আনন্দ ছিল তেমনি শিক্ষার্থীরা অধীর আগ্রহে ছিল নতুন বই হাতে পাওয়ার জন্যও। নতুন বই শুধু শিক্ষার্থীদের আনন্দকেই বাড়িয়ে দেয়নি, সেই সাথে অভিভাবকদের মধ্যেও আনন্দের একটা রেশ দেখা গেছে। অপেক্ষাকৃত নিচের ক্লাসগুলোতে অভিভাবকরাও স্কুলে উপস্থিত থেকে নতুন বই সংগ্রহ করেছেন। অনেক অভিভাবককে স্কুলে এসে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে শিশুদের জন্য বই সংগ্রহ করতে দেখা গেছে। বিদ্যালয়ের সুনিল তংচংগ্যা নামে এক অভিভাবক জানান, অপেক্ষা করে বই সংগ্রহ করলেও কোনো অভিভাবকের মধ্যেই বিরক্তির ছাপ ছিল না। সন্তানদের জন্য নতুন বই সংগ্রহ করে অভিভাবক নিজেরাও আনন্দ পেয়েছেন।

 

 

২০১২ সাল থেকে বর্তমান সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে বই বিতরণ উৎসবের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিচ্ছে। এই কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় সারাদেশে একযোগে বছরের প্রথম দিন ১ জানুয়ারি শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্ট দফতরসমূহের কর্মকর্তা-কর্মচারির উপস্থিতিতে উৎসবমুখর ও আনন্দঘন পরিবেশে বই বিতরণ উদযাপিত হয়ে আসছে।